বাংলাদেশ বুধবার 21, November 2018 - ৭, অগ্রাহায়ণ, ১৪২৫ বাংলা

ক্ষমতাসীন শিবিরে ‘বিএনপি নির্ভর’ নির্বাচনী ভাবনা!

ফুলকি ডেস্ক | প্রকাশিত ০৮ জুলাই, ২০১৮ ১৬:৪০:২৮

 একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আসন বণ্টন নিয়ে কোনো সিদ্ধান্তে উপনীত হয়নি ক্ষমতাসীন মহাজোট। যদিও আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন জোটের শরিক জাতীয় পার্টি পৃথক নির্বাচনের কথা বলছে। কিন্তু এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি তারা।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, আসন বণ্টন নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে উপনীত না হওয়ার পেছনে রয়েছে নির্বাচনে ‘বিএনপি নির্ভর’ ভাবনা। আওয়ামী লীগ ও জোট নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, জোট নেতৃত্বাধীন দলের কাছে ইতোমধ্যে নিজেদের প্রত্যাশিত আসন সংখ্যার কথা জানিয়েছেন শরিকরা। তবে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে আসন বণ্টনের চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারছে না ক্ষমতাসীন জোটের নেতারা।

জোট নেতাদের ভাষ্য অনুযায়ী, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি না আসায় আসন বণ্টনের রূপরেখা এক রকম ছিল। আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি আসবে কিনা- এ বিষয়ে এখনও অনিশ্চয়তা রয়েছে। সেক্ষেত্রে আসন বণ্টন নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়ার সময় এখনও আসেনি বলে মনে করেন তারা। জোট নেতারা জানিয়েছেন, বিএনপি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক ও সাংবিধানিক গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষ্যে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে একটি বৃহত্তর ঐক্য গঠিত হতে পারে। সেক্ষেত্রে আসন ভাগাভাগির চেয়ে রাজনৈতিক বিজয় গুরুত্ব পাবে। অন্যদিকে, বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করলে ১৪ দলীয় জোট অক্ষুণ্ন থাকতে পারে অথবা পৃথক পৃথকভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারে। তাই বিএনপির নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা, না করার সিদ্ধান্তের ওপর আসন বণ্টনের বিষয়টি চূড়ান্ত করা সহজ হবে। এমনটি মনে করেন ক্ষমতাসীনরা। জানা গেছে, বর্তমান সংসদে ৩৪টি আসন নিয়ে বিরোধী দলে থাকা জাতীয় পার্টি আগামীতে জোটগত নির্বাচনের ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের কাছে ৭০টি আসন পাওয়ার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছে। যদিও শুরু থেকে জাতীয় পার্টি পৃথকভাবে নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়ে আসছে।

জাতীয় পার্টির দুজন প্রভাবশালী নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, নির্বাচনী রাজনীতি এখনও শুরু হয়নি। আমরা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি। জোটবদ্ধভাবে নির্বাচনে আমাদের প্রত্যাশার কথা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জানিয়েছি। পরবর্তীতে আমরা দলীয়ভাবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করব। অন্যদিকে ছয়টি আসনে প্রতিনিধিত্বকারী বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির প্রত্যাশা ১৫টি আসন, দুটি আসন থাকা তরিকত ফেডারেশনের প্রত্যাশা ১০টি আসন, দুটি আসন থাকা জাতীয় পার্টি (জেপি) তাদের আসনগুলোই চাইছে।

কেন্দ্রীয় ১৪ দলীয় জোটে থাকা জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) দশম সংসদে পাঁচটি আসন পেয়েছিল। দল ভেঙে জাসদ, ইনু-শিরীন তিনটি এবং জাসদ, আম্বিয়া-প্রধান অংশে রয়েছে দুটি আসন। পৃথক প্রত্যাশায় ইনুর নেতৃত্বাধীন জাসদ ৩০টি এবং আম্বিয়ার নেতৃত্বাধীন জাসদ ১৫টি আসন চাইছে জোট নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগের কাছে। বর্তমান সংসদে কোনো আসন পায়নি এমন জোট শরিক ন্যাপ ২০টি আসন, গণতন্ত্রী পার্টি ১০টি, সাম্যবাদী দল চারটি আসন দাবি করেছে জোট নেতৃত্বাধীন দলের কাছে। এছাড়া নির্বাচন কমিশনের নিবন্ধিত নয় এমন দল বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ) ছয়টি আসন, গণআজাদী লীগ ১০টি, কমিউনিস্ট কেন্দ্র দুটি এবং গণতান্ত্রিক মজদুর পার্টি দুটি আসন চাইছে।

এ প্রসঙ্গে গণতান্ত্রিক মজদুর পার্টির সভাপতি জাকির হোসেন বলেন, ‘১৪ দলীয় জোট থেকে আমরা দুটি আসনে নির্বাচন করতে চাই। তবে বড় বিষয় হলো জোটের প্রার্থীকেই নির্বাচিত করা। আসন বণ্টন নিয়ে এখনও কোনো আনুষ্ঠানিক আলোচনা হয়নি। হলে আমাদের দাবির বিষয়টি সেখানে উপস্থাপন করব।’ আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য ও ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘আমরা একসঙ্গে নির্বাচন করব- এমন সিদ্ধান্ত হয়েছে। নির্বাচন এখনও ঢের দেরি। নির্বাচনের আগে অবস্থান বুঝে, নেত্রী (শেখ হাসিনা) ১৪ দলের নেতাদের সঙ্গে বসবেন। সেখানে আলোচনা হবে, তখন সিদ্ধান্ত হবে ১৪ দলে কার কী পজিশন হবে। আসন নিয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।’

‘জাতীয় পার্টির সঙ্গে সম্পর্ক কেমন হবে’- এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘এর সঙ্গে দুটি বিষয় জড়িত। বিএনপি নির্বাচন করছে কিনা; এখানে একটি রাজনৈতিক পরিস্থিতি থাকছে। আবার বিএনপি যদি নির্বাচন না করে; সেক্ষেত্রেও আরেকটি পরিস্থিতি থাকছে।’

‘জাতীয় পার্টির সঙ্গে সম্পর্ক কী হবে তা ওই অবস্থা বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। নির্বাচন কীভাবে হচ্ছে তা দেখে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

 স্বেচ্ছাসেবক দলের ৮ আংশিক কমিটি ঘোষণা

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের ৮টি সাংগঠনিক ইউনিটের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি শফিউল বারী বাবু ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ভূইয়া জুয়েল এসব কমিটির অনুমোদন দেন। রোববার দুপুরে সংগঠনটির দফতরের দায়িত্বে থাকা মো. রফিকুল ইসলাম গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে পাঠানো এক ই-মেইলে এ তথ্য জানান। এতে উল্লেখ করা হয়, আগামী এক মাসের মধ্যে ইউনিটগুলোকে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ঘোষিত আংশিক কমিটিগুলো হচ্ছে-

কুমিল্লা মহানগর : সভাপতি নিজাম উদ্দিন কায়সার, সিনিয়র সহ-সভাপতি মুনির হোসেন পারভেজ, সহ-সভাপতি ফাহিম আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আমিরুল পাশা সিদ্দিকী রাকিব, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রোমান হাসান, রিয়াদ হোসেন খান, সালমান সাইদ, জহিরুল ইসলাম মহরম, সাংগঠনিক সম্পাদক এ.কে.এম শাহেদ পান্না।

কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা: সভাপতি নজরুল ইসলাম, সিনিয়র সহ-সভাপতি ফারুক আহমেদ, সহ-সভাপতি রেজাউর রহিম চৌধুরী জামিল, সৈয়দ মিরাজ উদ্দিন, গাজী কবির, সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, এনামুল হক সবুজ, সাইফুল ইসলাম সাইফ মিজি, মোহাম্মদ আমান উল্ল্যা, সাংগঠনিক সম্পাদক তোফায়েল আহমেদ।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা : সভাপতি সাইফুদ্দিন সালাম মিঠু, সিনিয়র সহ-সভাপতি রাহি, সহ-সভাপতি আব্দুর রশিদ, মোর্শেদুল আলম, মহিউদ্দিন শিকদার, সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুরুল আলম তালুকদার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সবুর, শফিউল করিম শফি, সালাউদ্দিন সুমন, মোহাম্মদ আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক ফৌজুল কবির ফজলু।

সৈয়দপুর রাজনৈতিক জেলা : সভাপতি এরশাদ হোসেন পাপ্পু, সিনিয়র সহ-সভাপতি জাকির হোসেন মেনন, সহ-সভাপতি লোকমান হাকিম, সাধারণ সম্পাদক এম.এ. পারভেজ লিটন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আজহার আলী, জাহিদ ইকবাল আরমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আসলাম আলী মল্লিক। হবিগঞ্জ জেলা : সভাপতি এনামুল হক সেলিম, সিনিয়র সহ-সভাপতি জহিরুল হক শরীফ, সহ-সভাপতি হাসবী সাইদ চৌধুরী, আব্দুল কাইয়ুম, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মুশফিক আহমে, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সোহেল, হুমায়ুন কবির রাজু, মাকসুদুর রহমান উজ্জ্বল, আলমপনা চৌধুরী মাসুদ, কুতুব উদ্দিন শামীম, সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ শাহবুদ্দিন।

সুনামগঞ্জ জেলা : সভাপতি সামছুজ্জামান জামান, সিনিয়র সহ-সভাপতি ইকবাল হোসেন, সহ-সভাপতি রাসেল আহমেদ, মোস্তাক আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মনাজ্জির হোসেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আহমেদ, আবুল কাশেম দুলু, মাশুক আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আহাদ জুয়েল।

 

নীলফামারী জেলা : সভাপতি মোহাম্মদ আবু সুফিয়ান, সিনিয়র সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আব্দুস সালাম বাবলা, সহ-সভাপতি খলিলুর রহমান হেলাল, শাহজাহান কবির লেলিন, এনামুল হক এনাম, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মোর্শেদ আজম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মশগুল, মোহাম্মদ হেলাল হোসেন, মোহাম্মদ রাশেদ রেজা-উদ-দৌলা, সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ মোস্তাক হোসেন।

জয়পুরহাট জেলা : সভাপতি মুশফিক আলম বুলু, সিনিয়র সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আবদুল ওয়াহাব, সহ-সভাপতি শামস মতিন, রুহুল আমিন ফারুক, সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন চপল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব আলম টুকু, তৈয়বুর রহমান রেজা, মোমিন খন্দকার ডালিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আলমগীর হোসেন।

 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন


এ সম্পর্কিত খবর

পর্যবেক্ষকরা গলায় কার্ড ঝুলিয়ে দাঁড়িয়ে থাকবেন, ব্যত্যয় হলে কঠোর ব্যবস্থা: ইসির সচিব

পর্যবেক্ষকরা গলায় কার্ড ঝুলিয়ে দাঁড়িয়ে থাকবেন, ব্যত্যয় হলে কঠোর ব্যবস্থা: ইসির সচিব

 নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেছেন, নির্বাচনী নীতিমালা অনুসরণ করে দায়িত্ব পালনে সতর্ক থাকতে হবে

সু্ষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দেখতে চায় ভারত, নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করবে না: কাদের

সু্ষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দেখতে চায় ভারত, নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করবে না: কাদের

 আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সু্ষ্ঠু ও নিরপেক্ষ

প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করতে ঐক্যফ্রন্টের বৈঠক আজ, থাকছে নতুন চমক

প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করতে ঐক্যফ্রন্টের বৈঠক আজ, থাকছে নতুন চমক

 জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতারা বৈঠকে বসতে যাচ্ছেন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তাদের প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করতে।


কে পাচ্ছেন মনোনয়ন?

কে পাচ্ছেন মনোনয়ন?

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কড়া নাড়ছে ঘরের দরজায়। আওয়ামী লীগ, বিএনপিসহ সব রাজনৈতিক দল নির্বাচনী

বিএনপির গুলশানের কার্যালয়ে ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন, বিএনপি বলছে পরিকল্পিত

বিএনপির গুলশানের কার্যালয়ে ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন, বিএনপি বলছে পরিকল্পিত

 বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ

৭৬ আসনের প্রার্থীর তালিকা আ’লীগকে দিলো জাপা

৭৬ আসনের প্রার্থীর তালিকা আ’লীগকে দিলো জাপা

 আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জোটবদ্ধভাবে নির্বাচন করতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কাছে ৭৬ আসন চেয়েছে


‘থ্যাংক ইউ পিএম’ নিয়ে ইসির কিছু করার নেই: ইসি সচিব

‘থ্যাংক ইউ পিএম’ নিয়ে ইসির কিছু করার নেই: ইসি সচিব

 বিভিন্ন ইলেকট্রনিক গণমাধ্যমে ‘থ্যাংক ইউ পিএম’ নামে যে প্রচার বিজ্ঞাপন চলছে তা নিয়ে ইসির কিছু

সম্ভাব্য প্রার্থীদের মামলা দিয়ে গ্রেফতার করা হচ্ছে : ফখরুল

সম্ভাব্য প্রার্থীদের মামলা দিয়ে গ্রেফতার করা হচ্ছে : ফখরুল

দলের সম্ভাব্য প্রার্থীদের আদালতের মাধ্যমে গ্রেফতার করা হচ্ছে অভিযোগ করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম

তারেকের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বৈঠকে ইসি

তারেকের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বৈঠকে ইসি

বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকারে স্কাইপের মাধ্যমে ভিডিও কনফারেন্সে দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান একাধিক মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি



আরো সংবাদ











খালেদা চাইলে চিকিৎসা : হাইকোর্ট

খালেদা চাইলে চিকিৎসা : হাইকোর্ট

১৯ নভেম্বর, ২০১৮ ১৭:৩৭



ব্রেকিং নিউজ