বাংলাদেশ রবিবার 21, October 2018 - ৬, কার্তিক, ১৪২৫ বাংলা

চাপ নয়, দুর্নীতির তদন্তের কারণেই বিদেশ পাড়ি দিয়েছেন সিনহা: বিচারপতি মানিক

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশিত ০৩ অক্টোবর, ২০১৮ ১৫:০০:২৩

: বাংলাদেশের প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা গোয়েন্দা সংস্থা ডিজিএফআই-এর চাপের মুখে দেশ ছাড়ার এবং পদত্যাগ করার যে দাবী সম্প্রতি করেছেন, সেটাকে অসত্য বলে আখ্যায়িত করেছেন সুপ্রিম কোর্ট-এর প্রাক্তন বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী।

বিবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বিচারপতি চৌধুরী বলেছেন, আপিল বিভাগের অন্য পাঁচজন বিচারক সিনহার সাথে কাজ করতে অস্বীকৃতি জানালে প্রধান বিচারপতির পদত্যাগ করা ছাড়া আর কোনো উপায় ছিল না।

বিচারপতি চৌধুরী বলেছেন, সিনহার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ দুর্নীতি দমন কমিশন তদন্ত শুরু করার কারণেই তিনি বিদেশে পাড়ি দিয়েছেন।

বিবিসি বাংলার মিজানুর রহমান খানের সাথে কথা বলছিলেন বিচারপতি সামসুদ্দিন চৌধুরী।

তিনি বলেন, ‘প্রধান বিচারপতি অত্যন্ত ক্ষমতাশালী একজন মানুষ কিন্তু। তাকে বের করে দেয়া তো চাট্টিখানি কথা না। প্রধান বিচারপতি অনেক কিছু করতে পারেন।’

‘উনাকে বললেন যে আপনি দেশ ছেড়ে চলে যান আর উনি চলে যাবেন- আমিও নিজেও বিচারপতি ছিলাম এটা আমি বিশ্বাস করতে নারাজ। প্রধান বিচারপতি তো দূরের কথা একজন হাইকোর্টের বিচারপতিকেও এভাবে দেশ থেকে বিতাড়ন সম্ভব নয়,’ বলেন চৌধুরী।

সিনহা তাকে কিভাবে দেশ থেকে বের করা হয়েছে তার যে বর্ণনা দিয়েছেন তার বইতে সেটিকেও অসত্য বলে দাবি করেন বিচারপতি চৌধুরী।

‘প্রথম কথা হলো যখন কতগুলো অভিযোগ তার বিরুদ্ধে এলো তখন আপিল বিভাগের পাঁচ জন বিচারপতি অভিযোগগুলোর নথিপত্র দেখে দৃঢ়ভাবে সিদ্ধান্ত নিলেন যে তারা প্রধান বিচারপতির সঙ্গে আর বসবেন না। সে অবস্থায় তার পদত্যাগ করা ছাড়া আর কোনো উপায় ছিলো না।’

‘কারণ তিনি কাজ করতে পারতেন না। তাছাড়া অভিযোগগুলো যখন আসলো তখন দুদক সচল হলো। আমি মনে করি দুদককে এড়ানোর জন্য উনি দেশ ছেড়েছিলেন,’ বলেন চৌধুরী।

মিস্টার সিনহা নিজে বলেছিলেন যে অন্য বিচারপতিদের চাপ তৈরি করে তাদের দিয়ে একথা বলা হয়েছে।

বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী সিনহার এমন দাবিও প্রত্যাখ্যান করেন। তার মতে, ‘দেখুন এসব বিচারপতির সাথে দীর্ঘদিন কাজ করেছি। এরা অত্যন্ত দৃঢ়চিত্তের এবং দৃঢ়চরিত্রের, ইস্পাত কঠিন চরিত্রের মানুষ কিন্তু এই পাঁচজনই।’

‘তারা কারও প্রভাবে প্রভাবিত হওয়ার লোক নয়। তারা কারও চাপের মুখে নতি স্বীকার করার মানুষও তারা নয়। তারা কোনো অবস্থায় কারও চাপের কাছে নতি স্বীকার করবেন না। সুতরাং সিনহা বাবুর এই অভিযোগ একেবারেই অসত্য বলে মনে করছি।’

ঘটনার পরই অন্য বিচারপতিদের সাথে তার কথা হয়েছে উল্লেখ করে চৌধুরী বলেন,‘পাঁচজনের সাথেই আমার কথা হয়েছে। তারা পরিষ্কার বলেছেন যে তারা যেসব প্রমাণাদি দেখেছেন এরপর সিনহা বাবুর সাথে বসার প্রশ্নই উঠতে পারেনা।’

‘তারা কিন্তু সিনহাকে এসব নিয়ে প্রশ্ন করে বলেছিলেন তিনি সদুত্তর দিতে পারলেই কেবল তারা তার সাথে বসবেন। সদুত্তর দিতে না পারলে বসবোনা।’

কিন্তু এতো অভিযোগ থাকার পরেও সরকার প্রধান বিচারপতিকে দেশ থেকে বের হতে দিলো কেনো?

এমন প্রশ্নের জবাবে চৌধুরী বলেন ওই মুহূর্তে সিনহার বিরুদ্ধে কোনো মামলা ছিলো না, যদিও তদন্ত চলছিলো। সুতরাং সেই মুহূর্তে তাকে বাধা দেয়ার সুযোগ ছিলো না।

সিনহা তাকে গৃহবন্দী করে রাখার বিষয়ে বইতে যা লিখেছেন বা বলেছেন সে দাবিও প্রত্যাখ্যান করেন চৌধুরী।

তিনি বলেন, ‘উনি লিখেছেন বা বলেছেন তাকে গৃহবন্দী করে রাখা হয়েছিলো। কিন্তু ওই সময় বহু সাংবাদিক তার বাড়ির চারপাশে ছিলো। তারা কিন্তু কখনোই এমনটি বলেনি।’

চৌধুরী যোগ করেন, ‘ওই সময় তিনজন মন্ত্রী তাকে দেখতে গিয়েছিলেন। উনি দাঁতের ডাক্তারের কাছে গেছেন। বিভিন্ন দূতাবাসে গেছেন ভিসার জন্য। আত্মীয় স্বজনের সাথে দেখা করতে গেছেন।’
‘প্রচুর আইনজীবী বিশেষ করে বিএনপি জামাতের আইনজীবীরাও দেখা করতে গেছেন। তারাও এমনটি বলেননি যে প্রধান বিচারপতিকে গৃহবন্দী করে রাখা হয়েছে। উনিও বলেননি। এখন নতুন শোনা যাচ্ছে।’

নির্বাচনের আগে বই প্রকাশ করে সরকার বা ক্ষমতাসীন দলকে বেকায়দায় ফেলার অভিযোগ সরকারি দলের নেতাদের তরফ থেকে ওঠার পর সুরেন্দ্র কুমার সিনহা তার বইটি এই সময়ে প্রকাশের বিষয়ে যে ব্যাখ্যা দিয়েছেন সেটিও মানতে রাজী নন বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক।

মিস্টার চৌধুরী বলেন, ‘আমি বইটি পড়েছি। আমার দৃঢ় বিশ্বাস এটি আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে প্রচারণার একটি দলিল। নির্বাচনে যাতে আওয়ামী লীগকে হেস্তনেস্ত করা যায় সেই উদ্দেশ্যেই এই বইটি তিনি লিখেছেন’।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন


এ সম্পর্কিত খবর

ঐক্যফ্রন্টের নেতারা রাজনৈতিকভাবে চরিত্রহীন: হাছান মাহমুদ

ঐক্যফ্রন্টের নেতারা রাজনৈতিকভাবে চরিত্রহীন: হাছান মাহমুদ

ড. কামাল হোসেন, আ স ম রব, মাহমুদুর রহমান মান্না ও ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনকে রাজনৈতিকভাবে

সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য চট্টগ্রামে ৪৫৬ ফ্ল্যাট

সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য চট্টগ্রামে ৪৫৬ ফ্ল্যাট

সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শতভাগ আবাসিক সুবিধা দিতে কাজ করছে সরকার। এরই অংশ হিসেবে চট্টগ্রামে ৪৫৬টি ফ্ল্যাট

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে অস্ত্র জমা দিয়ে আত্মসমর্পণ করল ৪৩ জলদস্যু

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে অস্ত্র জমা দিয়ে আত্মসমর্পণ করল ৪৩ জলদস্যু

কক্সবাজারের সন্ত্রাস কবলিত দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীর জলে-স্থলে ও পাহাড়ে ডাকাতি, দস্যুতা, অপহরণ, খুনসহ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড


বিরোধীদের উপর দমনমূলক আইন ব্যবহার করছে সরকার: এইচআরডব্লিউ

বিরোধীদের উপর দমনমূলক আইন ব্যবহার করছে সরকার: এইচআরডব্লিউ

 বাংলাদেশ সরকার রাজনৈতিকবিরোধী, সাংবাদিক, ভাষ্যকার ও টেলিভিশনের বিরুদ্ধে নতুন নতুন দমনমূলক আইন ও নীতি ব্যবহার

সিধা পথে আসুন, অন্য কোনো পথ খোলা নেই: সরকারকে ফখরুল

সিধা পথে আসুন, অন্য কোনো পথ খোলা নেই: সরকারকে ফখরুল

 সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের জন্য সরকারকে অবিলম্বে সিধা পথে আসার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা

গণপরিবহনে যৌন হয়রানি, প্রতিকার কী?

গণপরিবহনে যৌন হয়রানি, প্রতিকার কী?

গত ৩ অক্টোবর রাত সাড়ে ৯টায় রাজধানীর উত্তরার বাসায় যাওয়ার জন্যে নিউমার্কেট এলাকায় একটি বাসে


অভিযুক্ত কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে তিতাস

অভিযুক্ত কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে তিতাস

অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করছে

কামালের সামর্থ্য জানা আছে : বাণিজ্যমন্ত্রী

কামালের সামর্থ্য জানা আছে : বাণিজ্যমন্ত্রী

ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেনের সামর্থ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। তিনি বলেছেন, ‘ড.

বিদেশে চাকরিপ্রার্থীদের উদ্দেশ্যে যা বললেন প্রধানমন্ত্রী

বিদেশে চাকরিপ্রার্থীদের উদ্দেশ্যে যা বললেন প্রধানমন্ত্রী

 বিদেশে চাকরিপ্রার্থীদের জন্য প্রশিক্ষণ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘এটি খুবই দুর্ভাগ্যজনক



আরো সংবাদ











ব্যথায় ভুগছেন খালেদা জিয়া

ব্যথায় ভুগছেন খালেদা জিয়া

০৮ অক্টোবর, ২০১৮ ১৬:১৭



ব্রেকিং নিউজ











দেশে নতুন মেরুকরণ হতে পারে: এরশাদ

দেশে নতুন মেরুকরণ হতে পারে: এরশাদ

২০ অক্টোবর, ২০১৮ ১৭:১০