বাংলাদেশ সোমবার 18, February 2019 - ৬, ফাল্গুন, ১৪২৫ বাংলা

জাতীয় গ্রিডে এলএনজি আনতে আবারও কর্ণফুলী অতিক্রমের উদ্যোগ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশিত ০৫ অক্টোবর, ২০১৮ ১৫:১১:২৭

চট্টগ্রামের আনোয়ারা থেকে ফৌজদারহাট পর্যন্ত ৩০ কিলোমিটার পাইপলাইনের কাজ এরই মধ্যে শেষ হয়েছে। তবে কর্ণফুলী নদী অতিক্রম (রিভার ক্রসিং) করতে না পারায় জাতীয় গ্রিডে তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) যুক্ত হতে পারছে না। দুই দফা ব্যর্থ হওয়ার পর তৃতীয় দফায় রিভার ক্রসিংয়ের কাজ শুরু করতে যাচ্ছে ভারতীয় কোম্পানি জিপসাম। বলা হচ্ছে, আগামী ২০ অক্টোবরের মধ্যে কাজ শেষ করবে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি। যদিও গত ৩০ জুন এটি শেষ হওয়ার কথা ছিল।

এ বিষয়ে আনোয়ারা-ফৌজদারহাট প্রকল্প পরিচালক সুশীল কুমার সরকার  বলেন, ‘কর্ণফুলী নদীর পানির নিচে দুই দফা গর্ত করার চেষ্টা হয়েছে।দুই বারই নানা সমস্যা পড়ে ঠিকাদার কোম্পানি। এখন আবার কাজ শুরু করতে যাচ্ছে। আগামী ২০ অক্টোবরের মধ্যে ঠিকাদার কোম্পানি তাদের কাজ শেষ করবে বলে টার্গেট নিয়েছে।’

তিনি বলেন, পাইপলাইনের অন্য সব কাজ শেষ। রিভার ক্রসিং শেষ হলেই জাতীয় গ্রিডে এলএনজি আসবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। 

জানা গেছে, গত বছরের ১১ সেপ্টেম্বর ভারতীয় কোম্পানি জিপসাম ও বাংলাদেশি কোম্পানি গ্যাসমেন যৌথভাবে এ কাজের ঠিকাদার হিসেবে গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেডের (জিটিসিএল) সঙ্গে চুক্তি করে। এরপর গত ৩০ মার্চ পরীক্ষামূলক খননকাজ শুরু করা হয়। কিছুটা কাজ হওয়ার পর খননযন্ত্র (ড্রিলিং রিগ) ভেঙে ড্রিলিং রডসহ কিছু যন্ত্রপাতি আটকে যায়। এরপর ওই জায়গা থেকে আরও দুই মিটার সরে এসে নতুনভাবে গত ২১ মে খননকাজ শুরু করা হয়। সেখানেও যন্ত্রপাতি আটকে যায়। এখন আবার নতুন করে কাজ শুরু করা হয়েছে।

সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই- ইলাহী চৌধুরী বলেন, ‘দুই দফা ব্যর্থ হওয়ার পরও আমরা তৃতীয় দফায় আবার ঠিকাদার কোম্পানিকে সুযোগ দিয়েছি। কারণ নতুন করে দরপত্র আহ্বান করে কাজ দিতে হলে আরও সময় নষ্ট হবে।’

জিটিসিএল জানায়, পানির নিচে ড্রিল করে গর্ত করে তৈরি করা হয়। সাধারণত প্রথমে ৮ ইঞ্চি, এরপর ২০ ইঞ্চি, ৪০ ইঞ্চি এবং সর্বশেষ ৬০ ইঞ্চি ব্যাসের সুড়ঙ্গ করা হয়। এরপর সেই সুড়ঙ্গের মধ্যে ৪২ ইঞ্চি পাইপ ঢোকানো হয়। প্রথমবার ৪০ ইঞ্চি পর্যন্ত সুড়ঙ্গ করার পর সেখানে মেশিন ঘোরানোর সময় ড্রিল রড ভেঙে যায়। সেখানে পাথর জাতীয় জিনিস থাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। দ্বিতীয় দফায় সুড়ঙ্গের কাজ শেষ করে পাইপ ঢোকানোর পর পাইপ টানতে গিয়ে সুড়ঙ্গের কোনও এক জায়গায় আটকে যায়। এরপর আর কাজ করা যায়নি। পাইপ বের করে ফেলতে হয়। আর নিম্নচাপের প্রভাবে জোয়ারের পানি বেড়ে যাওয়ায়ও কাজ করতে সমস্যা হচ্ছিল। সমুদ্রের পানি প্রায় ২০ ফুট বেশি বেড়ে গিয়েছিল। পানির চাপে সুড়ঙ্গের লেয়ার ভেঙে যায়। প্রথম ও দ্বিতীয়বার সুড়ঙ্গ করার সময় ৫ মিটার দূরত্বে করা হয়েছে। এখন দ্বিতীয় দফায় করা সুড়ঙ্গেই কাজ করবে তারা।  

ঠিকাদার কোম্পানি জিপসামের একজন কর্মকর্তা জানান, তৃতীয় দফায় কাজের আগে তারা বেশ কিছু আগাম প্রস্তুতি নিয়েছেন। জোয়ার-ভাটা হিসাব করে সময় ঠিক করা হয়েছে। এছাড়া এই কাজের সহযোগিতার জন্য গত ২৩ সেপ্টেম্বর ইউরোপ থেকে পরামর্শক এসেছেন বলেও তিনি জানান। 

গত বছরের ২২ নভেম্বর একনেকে এই প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়। ‘বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি (বিশেষ বিধান) আইন, ২০১০’-এর আওতায় এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। চারটি লটে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে। এ জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৭১ কোটি ৬৯ লাখ টাকা।

গত ২৪ এপ্রিল এক্সিলারেট এনার্জি এলএনজির ভাসমান টার্মিনালটি কাতার থেকে বাংলাদেশে নিয়ে আসে। এরপর গত ১৮ আগস্ট প্রথমবারের মতো এলএনজি সরবরাহ শুরু করা হয়। তবে পাইপলাইনের কাজ শেষ না হওয়ায় এখন পর্যন্ত শুধু চট্টগ্রামে এই গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে।

প্রাকৃতিক গ্যাস সাধারণ চাপ ও তাপমাত্রায় গ্যাসীয় অবস্থায় থাকে। শীতলীকরণ প্রযুক্তির মাধ্যমে তাপমাত্রা কমিয়ে মাইনাস ১৬০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নামিয়ে আনলে সেই গ্যাস তরলে পরিণত হয়। একটি জাহাজে প্রতিদিন দুই থেকে আড়াই হাজার মিলিয়ন বা ২০০ থেকে ২৫০ কোটি ঘনফুট এলএনজি আনা সম্ভব। এই তরল গ্যাস আবার স্বাভাবিক গ্যাসে পরিণত করতে এলএনজি টার্মিনালের সঙ্গে রি-গ্যাসিফিকেশন ইউনিট স্থাপন করেছে এক্সিলারেট। এই রি-গ্যাসিফিকেশন ইউনিটের মাধ্যমেই আবার তরল গ্যাস স্বাভাবিক গ্যাসে পরিণত করে তা পাইপলাইনে সরবরাহ করা হচ্ছে।

সরকারের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী কাতারের রাসগ্যাস এলএনজি সরবরাহ করবে। প্রতিদিন ৫০০ মিলিয়ন ঘনফুট করে এলএনজি সংগ্রহ করার লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে জ্বালানি বিভাগ। এক্সিলারেট ছাড়াও আগামী বছরের শুরুতে সামিট গ্রুপের এলএনজি টার্মিনালটি আসার কথা রয়েছে। এতে সরবরাহ আরও বাড়বে।

কাতার ছাড়াও ওমানের সঙ্গে এলএনজি সরবরাহ চুক্তি করেছে সরকার। এর বাইরে আরও ২৬টি কোম্পানির কাছ থেকে স্পট মার্কেটিং ভিত্তিতে এলএনজি কেনার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন


এ সম্পর্কিত খবর

সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে স্পিকার ড. শিরিন চৌধুরীর শ্রদ্ধা নিবেদন

সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে স্পিকার ড. শিরিন চৌধুরীর শ্রদ্ধা নিবেদন

: সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে বৃহস্পতিবার দুপুরে মুক্তিযুদ্ধে নিহত জাতীয় বীর শহীদ সন্তানদের প্রতি ফুল দিয়ে

আশুলিয়ায় সিলিন্ডার গ্যাস গোডাউনে আগুনে ক্ষয়ক্ষতি অর্ধকোটি টাকা

আশুলিয়ায় সিলিন্ডার গ্যাস গোডাউনে আগুনে ক্ষয়ক্ষতি অর্ধকোটি টাকা

: আশুলিয়ায় খলিলুর রহমানের মালিকানাধীন সিলিন্ডার গ্যাস মজুদ গোডাউনের বিস্ফোরিত আগুনে ভৌত অবকাঠামোসহ ক্ষয়ক্ষতি প্রায়

ইসি দাবি করলেই সুষ্ঠু নির্বাচন হবে, এমন কথা নেই : মাহবুব তালুকদার

ইসি দাবি করলেই সুষ্ঠু নির্বাচন হবে, এমন কথা নেই : মাহবুব তালুকদার

 একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সম্পর্কে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেছেন, ‘নির্বাচন কমিশন (ইসি) সুষ্ঠু নির্বাচনের


অ্যাক্রেডিটেশন সনদ পেল ১৫ প্রতিষ্ঠান

অ্যাক্রেডিটেশন সনদ পেল ১৫ প্রতিষ্ঠান

 টেস্টিং ল্যাবরেটরি ও ইন্সপেকশন প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ অ্যাক্রেডিটেশন বোর্ডের (বিএবি) সনদ পেল দেশীয় ও বহুজাতিক ১৫টি

দেশে চার লেনে উন্নীত হওয়া মহাসড়কের সংখ্যা ৬টি, দৈর্ঘ্য ৪৭০ কিলোমিটার

দেশে চার লেনে উন্নীত হওয়া মহাসড়কের সংখ্যা ৬টি, দৈর্ঘ্য ৪৭০ কিলোমিটার

 গত ১০ বছরে (২০০৯ থেকে জুন ২০১৮ পর্যন্ত) সড়ক ও জনপথ অধিদফতর উন্নয়ন খাতের আওতায়

নাগরিকদের অধিকার নিশ্চিত করাই আমাদের লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী

নাগরিকদের অধিকার নিশ্চিত করাই আমাদের লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার : এদেশে সব নাগরিকের সমান অধিকার রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


শপথ নিলেন গাইবান্ধা-৩ আসনের এমপি ইউনুস আলী সরকার

শপথ নিলেন গাইবান্ধা-৩ আসনের এমপি ইউনুস আলী সরকার

স্টাফ রিপোর্টার : গাইবান্ধা-৩ আসনে নির্বাচিত আওয়ামী লীগ মনোনীত সংসদ সদস্য ডা. মো. ইউনুস আলী

জাতীয় স্মৃতিসৌধে স্পিকার ও হুইপদের শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা

জাতীয় স্মৃতিসৌধে স্পিকার ও হুইপদের শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা

: সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে বীর শহীদের প্রতি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন একাদশ সংসদের স্পিকার ড.

সংসদে না গেলে বিএনপির অস্তিত্ব বিপন্ন হবে: কাদের

সংসদে না গেলে বিএনপির অস্তিত্ব বিপন্ন হবে: কাদের

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপির যারা সংসদ সদস্য রয়েছেন আমি মনে করি তাদের শপথ নেয়া উচিত,



আরো সংবাদ




চট্টগ্রামে চিকিৎসকের লাশ উদ্ধার

চট্টগ্রামে চিকিৎসকের লাশ উদ্ধার

৩১ জানুয়ারী, ২০১৯ ১১:৪৮


বাল্যবিয়ে পড়ানোয় ইমামের কারাদন্ড

বাল্যবিয়ে পড়ানোয় ইমামের কারাদন্ড

৩০ জানুয়ারী, ২০১৯ ১৪:৪০








ব্রেকিং নিউজ