বাংলাদেশ সোমবার 19, November 2018 - ৪, অগ্রাহায়ণ, ১৪২৫ বাংলা

নির্বাচনের তফসিল আসলে কী?

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশিত ০৮ নভেম্বর, ২০১৮ ১৭:২৩:৫৫

 বর্তমান সংসদের মেয়াদ শেষ হয়ে এলো। ২৮শে জানুয়ারি সংসদের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। এর মধ্যে বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ নির্বাচন আয়োজন করতে হবে। সাংবিধানিক দায়িত্ব হিসেবে বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশনের পরবর্তী নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করার কথা আজ সন্ধ্যায়। অর্থাৎ নির্বাচন কত তারিখ হবে সেটি ঘোষণা। কিন্তু তফসিল মানে শুধুই নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা নয়। নির্বাচনের সাথে জড়িত খুঁটিনাটি আরও অনেক বিষয়ে সিদ্ধান্ত জড়িত এই তফসিলের সাথে। খবর বিবিসি’র।

কি সেগুলো?
এ বিষয়ে সাবেক নির্বাচন কমিশনার ডঃ এম সাখাওয়াত হোসেন সেগুলো ব্যাখ্যা করছিলেন।

নির্বাচনের তফসিলে কী থাকে?
খুব সহজ ভাষায় এটি নির্বাচন অনুষ্ঠানের তারিখের একটি আইনি ঘোষণা। নির্বাচন আয়োজন করার জন্য যেসব কাজকর্ম জড়িত রয়েছে তার সবকিছুর জন্যেও একটি সময় বেঁধে দেয়া হয়।

যেমন প্রার্থীরা তাদের প্রার্থিতার মনোনয়নের কাগজ কত তারিখ জমা দেয়া শুরু করতে পারবেন সেটি ঘোষণা করা হয়।

মনোনয়নের কাগজ নির্বাচন কমিশন কতদিনের মধ্যে বাছাই করবে, বাছাই প্রক্রিয়ায় যদি সেটি বাতিল হয়ে যায় তাহলে প্রার্থিতা প্রত্যাশী ব্যক্তি কতদিন পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনে আপিল করতে পারবে তার সময় বেঁধে দেয় কমিশন।

যারা প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পাবেন তাদের তালিকা কবে নাগাদ ছাপানো হবে, নির্বাচনী প্রচারণা কবে থেকে শুরু করা যাবে আর কতদিন পর্যন্ত তা চালানো যাবে - সেটির উল্লেখ থাকে।

সাধারণত প্রার্থীর নির্বাচনী প্রতীক ঘোষণার সাথে প্রচারণা শুরুর তারিখ সম্পর্কিত থাকে। নির্বাচন কয় তারিখ হবে, ক’টায় শুরু হবে আর ক’টা পর্যন্ত চলবে সেটির বিস্তারিত এবং ভোটের পর তার গণনা কিভাবে ও কোথায় হবে সেটিরও বৃত্তান্ত থাকে। এই পুরো বিষয়টিকেই নির্বাচনের তফসিল বলা হয়।

এসব সিদ্ধান্ত কারা নেয়?
কিছু বিষয় সংবিধানে একদম নিশ্চিত করে বলা আছে। তাই সেগুলো নিয়ে আদৌ কোন সিদ্ধান্ত নেয়ারই দরকার হয়না। যেমন সংবিধানে বলা আছে সংসদের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন আয়োজন করতে হবে।

অর্থ্যাৎ ২৮শে জানুয়ারি সংসদের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। কিন্তু এই ৯০ দিনের মধ্যে কবে নির্বাচনের তারিখ সেটি ঘোষণা করবে নির্বাচন কমিশন। কমিশনারদের মধ্যে সেটি নিয়ে এবং নির্বাচনের তফসিলের অন্যান্য সকল বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। তারপর বেশিরভাগ কমিশনার যে সিদ্ধান্ত দেয় সেটি গৃহীত হওয়ার কথা।

নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার পর কি বদল করা যায়?
নির্বাচন কমিশন চাইলে সংসদ মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে ঐ ৯০ দিনের মধ্যে দেয়া নির্বাচনের তারিখ বদলাতে পারে। যদি সেটি দরকার হয় তাহলে নির্বাচন কমিশনের সেই এখতিয়ার রয়েছে। সেক্ষেত্রে তফসিল সংশোধন করে দেয়া যায়।

এর সাথে সম্পর্কিত অন্যান্য তারিখগুলো পরিবর্তন করে দিতে পারে কমিশন। ডঃ এম সাখাওয়াত হোসেন একটি নমুনা দিয়ে বলছিলেন, ২০০৮ সালে ডঃ এটিএম শামসুল হুদার নির্বাচন কমিশন ডিসেম্বরের ১৮ তারিখ নির্বাচনের তারিখ দিয়েছিলো।

কিন্তু বিএনপি তখনো নির্বাচনে আসবে কিনা সেনিয়ে নানা ধরনের আলোচনা চলছিল। এরপর বিএনপির সাথে আলোচনার পর তাদের দাবির ভিত্তিতে নির্বাচনের তারিখ পিছিয়ে ২৯ ডিসেম্বর করা হয়েছিলো।

এবারও যে বৃহত্তর রাজনৈতিক জোট তৈরি হয়েছে সেই জাতিয় ঐক্যফ্রন্ট সংলাপের মাধ্যমে সংকটের সমাধান না হওয়া পর্যন্ত নির্বাচনী তফসীল ঘোষণা না করার অনুরোধ জানিয়েছে।

২০০৬ সালে একবার নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর রাজনৈতিক সংকটের মুখে নির্বাচন কমিশন পদত্যাগ করেছিলো। কিন্তু নির্বাচনের তারিখটি রয়ে গিয়েছিলো। সেই তারিখ পরে বাতিল করেছিলো আদালত অন্য একটি দেশের তফসিলের নমুনা

সাধারণত বাংলাদেশের তফসিলে যেসব কার্যক্রম দেয়া থাকে তা করার জন্য সবমিলিয়ে পুরো সময়কাল ৪৫ দিন হয়ে থাকে। সেটাই সাধারণত বাংলাদেশের রেওয়াজ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ব্রিটেনে তফসিলের সময়কাল হল সব মিলিয়ে ১৭ দিন।

সংসদের মেয়াদ শেষ হওয়ার পর ১৭ দিনের মধ্যে সেখানে নির্বাচন সহ তার আগের সবকিছু শেষ করতে হবে। সেখানে আইন করে স্থায়ী একটি তফসিল তৈরি করাই রয়েছে। আর সেখানে নির্বাচন কমিশন নির্বাচন আয়োজন করে না। সেটি করে থাকে স্থানীয় কাউন্সিল।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন


এ সম্পর্কিত খবর

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ইসির বৈঠক ২২ নভেম্বর

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ইসির বৈঠক ২২ নভেম্বর

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে ২২ নভেম্বর (বৃহস্পতিবার) আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বৈঠক করবে নির্বাচন কমিশন

আইনে থাকলে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা : ইসি

আইনে থাকলে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা : ইসি

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি তারেক রহমান ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের

যে কৌশলে বিদ্রোহ ঠেকাতে চায় বিএনপি

যে কৌশলে বিদ্রোহ ঠেকাতে চায় বিএনপি

 দশ বছর পর সংসদ নির্বাচনে যাচ্ছে বিএনপি। তাই অনেকে এবারই প্রথম মনোনয়ন ফর্ম কিনেছেন। শো-ডাউন


সংসদ নির্বাচন: ইভিএম ব্যবহারে কোন ধরনের ঝুঁকি রয়েছে?

সংসদ নির্বাচন: ইভিএম ব্যবহারে কোন ধরনের ঝুঁকি রয়েছে?

   এখনো ঠিক কতগুলো আসনে ইলেকট্রিক ভোটিং মেশিন-ইভিএম ব্যবহার হবে তা নিশ্চিত করেনি নির্বাচন কমিশন।

গণফোরামে যোগ দিলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়ার ছেলে ড. রেজা

গণফোরামে যোগ দিলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়ার ছেলে ড. রেজা

 জাতীয় নির্বাচনের আগে গণফোরামে যোগ দিয়েছেন আওয়ামী লীগ আমলের অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়ার

ভুয়া ওয়েবসাইট কিভাবে চিনবেন

ভুয়া ওয়েবসাইট কিভাবে চিনবেন

 ফেক নিউজ বা ভুয়া খবর ছড়াতে এখন নামী সংবাদ প্রতিষ্ঠানগুলোর ওয়েবসাইটের পুরো নকল ওয়েবসাইট তৈরি


ক্ষমতাসীনদের লুটপাটের সম্পদ গোপন রাখতেই এই বিধান তুলে দিয়েছে ইসি: রিজভী

ক্ষমতাসীনদের লুটপাটের সম্পদ গোপন রাখতেই এই বিধান তুলে দিয়েছে ইসি: রিজভী

 বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের লুটপাটের সম্পদ গোপন রাখতেই

জাতির কাছে আমি এর বিচার চাই: ওবায়দুল কাদের

জাতির কাছে আমি এর বিচার চাই: ওবায়দুল কাদের

: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, জরিপের ওপর ভিত্তি করে দল ও জোটের

ভোট পর্যবেক্ষণ করতে চাইলে ২১ নভেম্বরের মধ্যে আবেদন

ভোট পর্যবেক্ষণ করতে চাইলে ২১ নভেম্বরের মধ্যে আবেদন

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করতে চাইলে নিবন্ধিত ১১৮ স্থানীয় পর্যবেক্ষক সংস্থাকে ২১ নভেম্বরের মধ্যে



আরো সংবাদ










বিশ্ব ইজতেমা স্থগিত হয়নি!

বিশ্ব ইজতেমা স্থগিত হয়নি!

১৬ নভেম্বর, ২০১৮ ২০:১৬




ব্রেকিং নিউজ











ভুয়া ওয়েবসাইট কিভাবে চিনবেন

ভুয়া ওয়েবসাইট কিভাবে চিনবেন

১৮ নভেম্বর, ২০১৮ ১৬:০০