বাংলাদেশ বুধবার 12, December 2018 - ২৮, অগ্রাহায়ণ, ১৪২৫ বাংলা

প্রশাসনের কর্মকর্তাদের ইসিকে সহযোগিতার নির্দেশনা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশিত ১৫ নভেম্বর, ২০১৮ ২০:১৬:০৫

প্রশাসনের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করার লক্ষ্যে নির্বাচন কমিশনকে সহযোগিতার নির্দেশনা দিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

নির্বাচন কমিশনের আধা-সরকারি পত্রের পরিপ্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার ‘নির্বাচন কর্মকর্তা (বিশেষ বিধান) আইন, ১৯৯১’ এর অনুসরণীয় বিধানগুলো উল্লেখ করে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম স্বাক্ষরিত এক আদেশে এ নির্দেশনা দেয়া হয়।

একই সঙ্গে ‘একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠান অবাধ, সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে নির্বাচন কর্মকর্তা (বিশেষ বিধান) আইন, ১৯৯১-এর বিধান অনুসরণ’ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের কাছে আরেকটি নির্দেশনা জারি করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন যাতে অবাধ, সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠিত হয় সেদিকে লক্ষ্য রেখে অর্পিত দায়িত্ব পালন সংশ্লিষ্ট সবার কর্তব্য। নির্বাচন কমিশনের অনুরোধে সরকারের পক্ষ থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষার প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয় জানিয়েছে, নির্বাচন সংক্রান্ত কার্যাদি সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা ও সম্পাদনের জন্য বিভিন্ন সরকারি, আধা-সরকারি দফতর, স্বায়ত্তশাসিত, আধা-স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্য থেকে প্রয়োজনীয় সংখ্যক প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিজাইডিং এবং পোলিং অফিসার নিয়োগ করা হবে।

এতে আরও বলা হয়, বিভিন্ন পর্যায়ে সরকারি এবং সরকারি অনুমোদনপ্রাপ্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা নির্বানের কাজে প্রত্যক্ষভাবে দায়িত্বপ্রাপ্ত হবেন। এ ছাড়া বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, সংস্থার স্থাপনা, অঙ্গণ ভোটগ্রহণের কাজে ভোটকেন্দ্র হিসেবে এবং ওই সব প্রতিষ্ঠারে আসবাবপত্র নির্বাচনে ব্যবহৃত হবে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট সব সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, আধা-স্বায়ত্তশাসিত, বেসরকারি দফতর, প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অতীতের মতো এ নির্বাচনেও কমিশনকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবেন বলে সরকার আশা করে।

নির্বাচনের দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মকর্তাদের শৃঙ্খলা ও নিয়ন্ত্রণের বিধান সংবলিত নির্বাচন কর্মকর্তা (বিশেষ বিধান) আইন ১৯৯১ অনুসারে নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত যেকোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী উক্তরূপে নিয়োগের তারিখ থেকে নির্বাচনী দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি না পাওয়া পর্যন্ত তার নিজ চাকরির অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে নির্বাচন কমিশনের অধীনে প্রেষণে চাকরিরত বলে গণ্য হবেন বলেও নির্দেশনায় উল্লেখ করা হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়, প্রেষণে চাকরিরত অবস্থায় তিনি নির্বাচন সংক্রান্ত দায়িত্ব পালনে নির্বাচন কমিশন এবং ক্ষেত্রমতে রিটার্নিং অফিসারের নিয়ন্ত্রণে থাকবেন এবং তাদের যাবতীয় আইনানুগ আদেশ বা নির্দেশ পালনে বাধ্য থাকবেন। প্রেষণে থাকাকালে নির্বাচন সংক্রান্ত দায়িত্ব অগ্রাধিকার পাবে।

নির্বাচন অনুষ্ঠানের কাজে অর্পিত দায়িত্ব আইন ও বিধি মোতাবেক নিরপক্ষেভাবে পালনের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশনকে সহযোগিতা ও সহায়তার জন্য সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগকে তাদের অধীন সংশ্লিষ্ট সব কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে অনতিবিলম্বে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিতে আদেশে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

এছাড়া বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শিক্ষকদের প্রতিও একই নির্দশনা জারি করতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করা হয়েছে।

আদেশে বলা হয়েছে, গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ অনুসারে নির্বাচনে তফসিল ঘোষণার তারিখ থেকে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর ১৫ দিন সময় অতিক্রান্ত না হওয়া পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে পরামর্শ ছাড়া নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কোনো কর্মকর্তাকে অন্যত্র বদলি করা যাবে না। সব মন্ত্রণালয়, বিভাগ এবং আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত সংস্থাগুলোকে নির্বাচনের কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত নির্বাচনের কাজে নিয়োজিত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি প্রদান এবং অন্যত্র বদলি করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

উল্লিখিত নির্দেশনা জারিসহ আনুষঙ্গিক কাজ সম্পন্ন করে অবাধ, সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও নিরপক্ষে নির্বাচন অনুষ্ঠানে সর্বাত্মক সহায়তা করার জন্য সবাইকে অনুরোধ করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সচিব, মহাপুলিশ পরিদর্শক; বিজিবি, কোস্ট গার্ড, আনসার ও ভিডিপি এবং র্যা বের মহাপরিচালক; সব বিভাগীয় কমিশনার; মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতর, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর এবং মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক; সব পুলিশ কমিশনার, উপ-মহাপুলিশ পরিদর্শক, জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা, সব পুলিশ সুপার, আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসার, জেলা নির্বাচন অফিসার, আনসার ও ভিডিপির জেলা কমান্ডেন্ট, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা এবং উপজেলা/থানা নির্বাচন কর্মকর্তাদের নির্দেশনার অনুলিপি দেয়া হয়েছে।

অপর নির্দেশনায় বলা হয়েছে, নির্বাচনী কর্মকর্তাদের নির্বাচন সংক্রান্ত কোনো দায়িত্ব পালনে অনীহা, অসহযোগিতা, শৈথিল্য, ভুল তথ্য প্রদান ইত্যাদির জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা অসদাচরণের অভিযোগে অভিযুক্ত হবেন এবং তার বিরুদ্ধে আইনানুযায়ী শৃঙ্খলামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাবে।

তাই সরকারি/আধা-সরকারি/স্বায়ত্ত্বশাসিত/আধা-স্বায়ত্ত্বশাসিত/বেসরকারি দফতর/সংস্থা/প্রতিষ্ঠানে কর্মরত কর্মকর্তা/শিক্ষক/কর্মচারীকে সংশ্লিষ্ট আইনের বিধান সম্পর্কে সচেতন থেকে নির্বাচনী দায়িত্ব যথাযথভাবে পালনের বিশেষভাবে অনুরোধ জানানো হয়েছে ওই নির্দেশনায়।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন


এ সম্পর্কিত খবর

নির্বাচনের মাসে অনুমোদন পেল বেঙ্গল ব্যাংক, পিপলস-সিটিজেনকে ‘না’

নির্বাচনের মাসে অনুমোদন পেল বেঙ্গল ব্যাংক, পিপলস-সিটিজেনকে ‘না’

বিভিন্ন মহলের লবিং ও সরকারের চাপে এই নির্বাচনের মাসে রাজনৈতিক বিবেচনায় বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংককে নীতিগত

ভোটের উত্তাপে উত্তপ্ত হচ্ছে পরিবেশ

ভোটের উত্তাপে উত্তপ্ত হচ্ছে পরিবেশ

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা বলেছেন, এটা বলার অপেক্ষা রাখে না যে,

বিএনপির দুর্দিনের যাত্রীদের দীর্ঘশ্বাস!

বিএনপির দুর্দিনের যাত্রীদের দীর্ঘশ্বাস!

৩০ ডিসেম্বরের ভোট সামনে রেখে দলীয় নেতাদের ২৪২, আর দুই জোটকে ৫৮টি আসন দিয়ে প্রার্থী


৯ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ ডিবি প্রমাণ করলেও ব্যর্থ পিবিআই

৯ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ ডিবি প্রমাণ করলেও ব্যর্থ পিবিআই

ঢাকায় প্রথমবারের মতো কাতারের ভিসা সেন্টার (কিউভিসি) চালু হয়েছে। কাতারে অভিবাসন প্রত্যাশীদের ভিসা প্রসেসিং ও

বৃহস্পতিবার সাভারে পথসভা করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বৃহস্পতিবার সাভারে পথসভা করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

 জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্যদিয়ে আগামীকাল বুধবার টুঙ্গিপাড়া থেকে একাদশ

এবার ৫৪টি নিউজ পোর্টাল ও লিংক বন্ধের নির্দেশ

এবার ৫৪টি নিউজ পোর্টাল ও লিংক বন্ধের নির্দেশ

এবার ৫৪টি ওয়েবসাইট (নিউজ পোর্টাল) ও লিংক বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন বিটিআরসি। সোমবার


ভোটের মাঠে ১৮৪১ প্রার্থী

ভোটের মাঠে ১৮৪১ প্রার্থী

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটের মাঠে লড়বেন এক হাজার ৮৪১ প্রার্থী। এর মধ্যে স্বতন্ত্র

এখনও ঋণে ডাবল ডিজিটের সুদ নিচ্ছে ২৯ ব্যাংক

এখনও ঋণে ডাবল ডিজিটের সুদ নিচ্ছে ২৯ ব্যাংক

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা সত্ত্বেও এখনও অতিরিক্ত সুদহার আদায় করছে দেশের অধিকাংশ ব্যাংক। এক অঙ্কে সুদহার নামিয়ে

আশুলিয়ায় ১৭ কারখানায় শ্রমিক বিক্ষোভ, ভাঙচুর

আশুলিয়ায় ১৭ কারখানায় শ্রমিক বিক্ষোভ, ভাঙচুর

নতুন ঘোষিত মজুরি কাঠামোতে বৈষম্যের অভিযোগ তুলে সাভারের আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলে শ্রমিকদের বিক্ষোভ, ভাঙচুর ও ধাওয়া-পাল্টা



আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ











ড. কামাল হোসেন সিলেট যাচ্ছেন

ড. কামাল হোসেন সিলেট যাচ্ছেন

১১ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৯:৩১