এটা সত্য ক্লাব ক্রিকেটে দর্শক অনেক কমে গেছে; কিন্তু যতই কমুক না কেন, চ্যাম্পিয়ন আর জনপ্রিয় দল আবাহনীর লিগের প্রথম ম্যাচ দেখতে ১০০ সমর্থক, ভক্তও মাঠে আসবেন না, তা কি করে হয়? শুনতে অবাক লাগলেও সত্য, মিরপুরে গ্যালারি ওপেন করে দেয়ার পরও আজ দর্শক আসেনি মাঠে

আজ রোববার তারকায় ঠাসা মুশফিকুর রহীম, লিটন দাস, নাইম শেখ, নাজমুল হোসেন শান্ত, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব, আফিফ হোসেন ধ্রুব, সাইফউদ্দীন, তাইজুল আর আরাফাত সানিদের সাজানো আকাশী-হলুদ জার্সির প্রথম ম্যাচ দেখতে সর্বোচ্চ ৫০জন আবাহনী সমর্থক বা দর্শক উপস্থিত হয়েছিলেন মাঠে।

স্মরণাতীতকালের মধ্যে আবাহনীর ম্যাচে এত কম দর্শক ও সমর্থকের মাঠে উপস্থিতি চোখে পড়েনি। খেলা শেষে সে প্রসঙ্গে কিছু বলতে গিয়ে আবাহনী অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম সোজা সাপটা কিছু না বলে বুঝিয়ে দিলেন, এত কম দর্শক ও সমর্থকের মাঠে আসা মোটেই অস্বাভাবিক নয়। বরং করোনার কারণে সেটাই স্বাভাবিক।

তার ব্যাখ্যা, ‘দেখুন! আসলে অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার প্রথম ওয়ানডেটি দেখে খুব অদ্ভুত লেগেছে। মাঠে কেউ নেই। বল যখন বাউন্ডারিতে যাচ্ছে তখন লকি ফার্গুসন যেয়ে উঠিয়ে নিয়ে আসছে। এটা আসলে কঠিন।’

মুশফিক বোঝানোর চেষ্টা করলেন, আজ শেরে বাংলায় তবু হাতেগোনা হলেও কিছু দর্শক ছিলেন। আর সে কারণেই দেশের ক্রিকেট অনুরাগী, নিজ দলের সাপোর্টার ও ভক্তদের কাছে একটি অনুরোধ সম্বলিত বার্তাও দিয়েছেন আবাহনী ক্যাপ্টেন।

তিনি দর্শক ও সমর্থকদের করোনা থেকে সচেতন থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। গ্যালারিতে মাস্ক পরে আসারও অনুরোধ করেছেন। ‘এখানে বাংলাদেশের সবাই তো ক্রিকেট পাগল। তাই তাদেরকেও আমি একটা বার্তা দেব, যেন তারা নিজেদের প্রতি সচেতন থাকে। যদি গ্যালারিতে বসেও, তাহলে যেন একটু দূরত্ব বজায় রাখে কিংবা মাস্ক পরে থাকে। যতটা করা যায়। কারণ একজন আক্রান্ত হলে অবশ্যই আরেকজনের হতেও পারে। আমি মনে করি, তাদের অবশ্যই সচেতন থাকা উচিত। এখন তারা যদি আমাদেরকে ভালোবাসে তাহলে আমাদেরও তাদেরকে ভালোবাসতে হবে। তাদেরকে সেই সতর্ক বার্তা দেয়া উচিৎ। আমার একটা অনুরোধ থাকবে যে তারা যেন সচেতন থাকে।’