স্বাধীনতার মহান স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ‘ঐক্যবদ্ধভাবে’ শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু)।

মঙ্গলবার (১৭ মার্চ) সকাল ৮টা ১৫ মিনিটে রাজধানীর ধানমন্ডি ৩২ নাম্বারে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করে ডাকসু। এসময় ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর, জিএস গোলাম রাব্বানী, এজিএস সাদ্দাম হোসেনসহ ডাকসুতে থাকা ছাত্রলীগ ও ছাত্র অধিকার পরিষদের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

দীর্ঘ ২৮ বছর পর অনুষ্ঠিত হওয়া ডাকসু নির্বাচনে ২৫টি পদের মধ্যে ভিপি ও সমাজসেবা সম্পাদক ছাড়া ২৩টি পদে জয়ী হয় আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের। আর ভিপি ও সমাজসেবা সম্পাদক পদে জয়লাভ করে কোটা সংস্কার আন্দোলনের প্ল্যাটফর্ম বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ। দীর্ঘদিন ধরে এ দুটি ছাত্র সংগঠনের বিপরীতমুখী অবস্থান লক্ষ্য করা যায়। বিভিন্ন দিবসে ডাকসুর পক্ষ থেকে ছাত্রলীগের অংশ ও ছাত্র অধিকার পরিষদের অংশকে আলাদাভাবে শ্রদ্ধা জানাতে দেখা যায়। সর্বশেষ ২১ ফেব্রুয়ারিতে শহীদ মিনারে ডাকসু ‘বিভক্ত’ শ্রদ্ধা নিবেদন করে। তবে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে একসঙ্গে শ্রদ্ধা নিবেদন করে উভয় পক্ষের নেতারা।

জানা যায়, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে একসঙ্গে শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য গতকাল সোমবার ডাকসু ভিপিকে সরাসরি আহ্বান জানান ডাকসুর এজিএস সাদ্দাম হোসেন। তখন ডাকসু ভিপি রাজি হন এবং একসঙ্গে ফুল দেয়ার পক্ষে মত দিয়ে সবাইকে সকালে ডাকসু ভবনে উপস্থিত থাকার কথা বলেন। উভয়ের কথার প্রেক্ষিতে ডাকসু নেতারা এক হয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানাতে যায়।

DAKSU-1

একসঙ্গে শ্রদ্ধা জানানোর বিষয়ে ডাকসু সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুর বলেন, ২৮ বছর পর ডাকসু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার পর ডাকসুর পক্ষ থেকে একত্রে সবাই বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করি। তারপর থেকে বিভিন্ন দিবসে ছাত্রলীগের অংশের নেতারা আলাদাভাবে শ্রদ্ধা জানায়। তবে আজকের শ্রদ্ধা নিবেদনের বিষয়ে ডাকসু এজিএস সাদ্দাম হোসেন আমাকে একসঙ্গে ফুল দেওয়ার কথা জানালে আমি রাজি হই এবং আমরা সবাই একসঙ্গে শ্রদ্ধা জানাতে যায়। বাকি যে সময়টা আছে সে সময়টাতে আমরা ঐক্যবদ্ধ থাকতে চাই।

নুরের বক্তব্যের সঙ্গে সুর মিলিয়ে ডাকসুর জিএস গোলাম রাব্বানী বলেন, আমরা ভিপিকে ফুল দেওয়ার আহ্বান জানালে সে রাজি হয়। আমরা একসঙ্গে শ্রদ্ধা জানাতে যাই। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে ডাকসুর সম্মিলিত শ্রদ্ধা নিবেদন আমার কাছে অনেক ভালো লাগছে। আমরা বাকি সময়টা একসঙ্গে পার করতে চাই।