ব্যস্ততা বাড়ছে। কাজের চাপের সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে চাপা টেনশন। মাঝে মধ্যেই অনুভব করছেন বুকে ব্যথা। তবে বুকে ব্যথা মানেই যে হার্টের সমস্যা এমনটা কিন্তু মনে করার কোনও কারণ নেই। মানসিক চাপের কারণেও হতে পারে এই ব্যথা। ঋতুস্রাবের আগে কিংবা ভারি কিছু ওঠানোর কারণেও বুকে ব্যথা হতে পারে। আবার প্রচণ্ড ভয় কিংবা মানসিক অস্বস্তি থেকেও এই ব্যথা দেখা দিতে পারে। কীভাবে বুঝবেন আপনার ব্যথার ভাষা?

আরো পড়ুন : টনসিলের ব্যথায় কষ্ট পাচ্ছেন, জেনে নিন ৫ ঘরোয়া প্রতিকার!

আসুন জেনে নেওয়া যাক ঠিক কী কী কারণে হতে পারে বুকে ব্যথা-

১) অতিরিক্ত ভয় পেলে প্রচণ্ড ভয় পাওয়ার পর বুকের ব্যথায় আক্রান্ত হওয়ার কারণটা নিঃসন্দেহে মানসিক। চিকিৎসকদের মতে, একজন রোগী প্রচণ্ড বুকে ব্যথা নিয়ে তাৎক্ষণিক চিকিৎসার জন্য চিকিৎসকের শরাণাপন্ন হলে অনেক ক্ষেত্রেই দেখা গিয়েছে তাঁর বুকে ব্যথার পেছনের হৃদযন্ত্রের কোনও ভূমিকা নেই।

২) ভার্টিগো প্রবণতা থাকলে– মানসিক কারণ থেকে হওয়া বুক ব্যথার উপসর্গগুলো ভয় পাওয়ার উপসর্গের সঙ্গে মিলে যায় যেমন – বুক ব্যথার সঙ্গে রোগীর প্রচণ্ড ঘাম হবে, শরীরে কাঁপুনি দেখা দেবে, দম আটকে যাওয়ার জোগার হবে। আর দেখা দিতে পারে পেটের গোলমাল, বমিভাব, শারীরিক ভারসাম্য হারানো ইত্যাদি।

আরো পড়ুন : করোনা প্রতিরোধে ঘরোয়া ওষুধ বা প্যারাসিটামল হতে পারে ক্ষতির কারণ!

৩) মানসিক কারণে হওয়া বুক ব্যথা বুকেই অনুভূত হয়: ভয়  বা মানসিক চাপ থেকে হওয়া ব্যথা বুকে শুরু হয় এবং তা যতক্ষণ স্থায়ী হয় ততক্ষণ একই স্থানে অনুভুত হয়। তবে হৃদরোগজনীত ব্যথা শুরু হয় বুকে এবং শরীরের অন্যান্য অঙ্গে ছড়িয়ে পড়ে, যেমন- চোয়াল, কাঁধ, হাত ইত্যাদি।

৪) বুকের অনান্য জায়গায় ব্যথা  হৃদযন্ত্র থাকে শরীরের বাম পাশে। তাই হৃদরোগের উপসর্গ হিসেবে দেখা দেওয়া ব্যথা বাম পাশেই অনুভুত হয়। কালেভদ্রে বুকের মাঝখানেও ব্যথা হতে দেখা গেছে। তবে বুকের অন্য যেকোনো অংশে ব্যথা হলে তার নেপথ্যের কারণটা মানসিক হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি।