করোনা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে অনেক গুজব ছড়ানো হচ্ছে। করোনা ঠেকাতে সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রতি দিন মাল্টিভিটামিন খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে বিভিন্ন পোস্ট শেয়ার করা হচ্ছে। তবে এখন কথা হচ্ছে– এসব ওষুধ করোনা প্রতিরোধে আসলেই কি কার্যকর? আর সংক্রমণ ঠেকাতে ভিটামিনের আসলেই কি কোনো ভূমিকা নেই। পর্যাপ্ত ভিটামিন-মিনারেল শরীরে এলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। প্রয়োজনে ট্যাবলেট-ক্যাপসুল খেলেও কাজ হয়। তবে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সুমিত সেনগুপ্তের মতে, চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ খাওয়া ঠিক নয়। ওষুধ খেলেই যে রোগ প্রতিরোধ করা যাবে এমন নয়।এসব ওষুধ না খেয়ে জীবনযাপনের কঠোর কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে। তাই পাতে রাখুন সবুজ সবজি ও ভিটামিনসমৃদ্ধ খাবার।

আরো পড়ুন : হাতের নখ ভাঙা রোধের কার্যকরী চার উপায়

কী খাবেন?

১. বাইরের তেল-মসলাদার খাবার, ভাজাপোড়া বা মিষ্টি খাবারের বদলে অল্প তেলে ঘরে রান্না করা খাবার খান।

২. প্রোটিনসমৃদ্ধ মাছ-মাংস-ডিম-দুধ, শাকসবজি-ফল, বাদাম, বীজ, ভাত, আটার রুটিও খেতে পারেন।

৩. সংক্রমণ ঠেকাতে ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ খাবার খান। তৈলাক্ত মাছ, ডিমের কুসুম, চিজ, টোফু, সব রকম বাদাম, বীজ খেতে পারেন।

৪. খোসাওয়ালা শস্যদানা যেমন ব্রাউন রাইস, আটার রুটি, খোসাওয়ালা ডাল খেতে পারেন। আর কুমড়ো, গাজরও খেতে পারেন।

আরো পড়ুন : এই ৬ জিনিস স্পর্শ করলেই হাত ধুয়ে নিন

৫. শরীরে জীবাণু ঢুকলে তাকে ধ্বংস করতে ওঠেপড়ে লাগে বি ভিটামিন। বিশেষ করে বি-৬, বি-৯ ও বি-১২। বি-৬ আছে চাল, গম, জোয়ার, বাজরা, ডাল, বিন্স, সবুজ শাকসবজি, ফল, বাদাম, মাছ, চিকেন ও রেড মিটে।

৬. বি-৯ বা ফলিক অ্যাসিড আছে সবুজ শাকসবজি, ডাল, বিনস, বাদাম, বীজে। আর বি-১২ আছে ডিম, দুধ, মাংস। কাজেই এসব খাবার খেতে পারেন।

৭. ভিটামিন ‘সি’ সমৃদ্ধ কমলা, লেবু, বেরি, কিউয়ি, ব্রকোলি, টমেটো, ক্যাপসিকাম খেতে পারেন। ভিটামিন ‘ই’ পেতে খেতে হবে বাদাম, সবুজ শাকসবজি ও কিছু উদ্ভিজ্জ তেল।

৮. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে ভূমিকা আছে ভিটামিন ডি’রও। গায়ে ভালো করে রোদ লাগালেই এর চাহিদা অনেকাংশে পূরণ হয়। আর খেতে পারেন ডিম, মাছ ও দুধ।

৯. খাবারে পর্যাপ্ত আয়রন, জিংক, সেলেনিয়াম থাকাও খুব জরুরি। আয়রন পেতে খান চিকেন, মাছ, ডাল, বিনস, খোসাওয়ালা শস্যদানা। জিংক পাবেন সামুদ্রিক মাছ, মাংস, চিকেন, শুকনো বিন ও বাদামে।

তথ্যসূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা