সাতক্ষীরা সংবাদদাতা : সাতক্ষীরায় বিভিন্ন দেশ থেকে বাড়ি ফিরেছেন ৮ হাজার ৮৬৮ জন। কিন্তু হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ১৬৯ জন। এছাড়া সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছেন একজন। জেলা পুলিশের তথ্য মতে, ১ মার্চ থেকে ১৮ মার্চ পর্যন্ত ৮৮৬৮ প্রবাসী বিদেশ থেকে সাতক্ষীরায় এসেছেন। এদের মধ্যে প্রায় ৮০ শতাংশ এসেছেন ভারত থেকে। জেলা প্রশাসন ও সিভিল সার্জন অফিসে তাদের তালিকা পাঠানো হয়েছে।

আরো পড়ুন : শিবচরে দোকানপাট, গণপরিবহন বন্ধ ঘোষণা

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের ডা. জয়ন্ত জানান, জেলার সাতটি উপজেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে ১৬৯ জনকে। এদের মধ্যে সাতক্ষীরা সদর উপজেলায় ৩৩ জন, আশাশুনি উপজেলায় ১৬ জন, শ্যামনগর উপজেলায় ৩৩ জন, কালিগঞ্জ উপজেলায় ৩৬ জন, দেবহাটা উপজেলায় ২৫ জন, কলারোয়া উপজেলায় আটজন ও তালা উপজেলায় ১৮ জন। এছাড়া একজন সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছেন।

তিনি বলেন, বিদেশ ফেরত সকলকে আমরা ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখব। এখনও সকলকে কোয়ারেন্টাইনের আওতায় আনা সম্ভব হয়নি। কেননা এই নির্দেশনা আসার আগেই অনেকে বিদেশ থেকে বাড়িতে এসেছেন।

পুলিশ সুপার মো. মোস্তাফিজুর রহমান জানিয়েছেন, বিদেশ ফেরত ৮ হাজার ৮৬৮ জনের তালিকা জেলা প্রশাসন ও সিভিল সার্জন অফিসে দেয়া হয়েছে। তালিকা অনুযায়ী তাদের বিষয়ে সার্বিক খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে। বিদেশ ফেরত সকলকে মনিটর করার সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

আরো পড়ুন : করোনার কারণে ২০১ গম্বুজ মসজিদে জুমার নামাজ স্থগিত

আতঙ্কিত না হয়ে সচেতনতার আহ্বান জানিয়ে সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন ডা. মো. হুসাইন সাফায়াত বলেন, জরুরি প্রয়োজন ছাড়া আপনারা বাইরে ঘোরাফেরা বা জনসমাগম স্থানে যাবেন না। স্বাস্থ্য বিভাগ সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে সকলকে নিরাপদ রাখার।

তিনি বলেন, বিদেশ ফেরত সাড়ে আট হাজারের মধ্যে মাত্র ১৬৯ জনকে আমরা শনাক্ত করতে পেরেছি। পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমাদের কাছে তালিকা দেয়া হয়েছে। তাদের খুঁজে বের করার চেষ্টা করছি। অল্প সময়ের মধ্যেই তাদেরও নজরদারির মধ্যে আনা হবে।

এদিকে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এস.এম মোস্তফা কামাল জানান, জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে গণবিজ্ঞপ্তি জারির মাধ্যমে সতর্ক করা হয়েছে। হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা বিদেশ ফেরতরা বাইরে ফেরাফেরা করলে বা কেউ তার সঙ্গে দেখা করতে গেলে জেল-জরিমানা করা হবে।