প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে নানা পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট ১০ দিনের পরিবর্তে পাঁচ দিন আগে থেকে বিক্রির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আগামীকাল থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। এর আগে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট সংগ্রহ করা যেত ১০ দিন আগে থেকে। কিন্তু রোববার রেলমন্ত্রীসহ রেলের শীর্ষ কর্মকর্তাদের এক বৈঠকে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, করোনা ভাইরাসের কারণে কোনো অবস্থায় ট্রেনের চলাচল কমিয়ে ফেলার প্রয়োজন হলে অগ্রিম টিকিটের টাকা ফেরত দিতে হবে। তাই ১০ দিন আগে অগ্রিম টিকিট বিক্রি হলে তা কিছুটা ঝামেলা হয়ে যাবে। তাই অগ্রিম টিকিট বিক্রির সময়সীমা কমিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

রেলের এক কর্মকর্তা জানান, করোনা আতঙ্কে ট্রেনে মানুষ যাচ্ছে কম, ফলে গত ২-৩ দিনে আমাদের ট্রেনের যাত্রী এবং কিছুটা আয় কমেছে। সেজন্যই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, এখন থেকে কেবল পাঁচ দিন আগের অগ্রিম টিকিট বিক্রি করার। সোমবার (২৩ মার্চ) থেকে এটা কার্যকর হবে।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, এ পরিস্থিতিতে কিছু মেইল ও লোকাল ট্রেনের চলাচল কমিয়ে দেওয়া যায় কি না, সে বিষয়ে আলোচনা হয়। তবে ট্রেন বন্ধ করার মতো সিদ্ধান্ত সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকে না এলে তা সম্ভব নয় বলে এর জন্য অপেক্ষা করার সিদ্ধান্ত হয়।

মৃত্যু ছাড়িয়েছে ১৩ হাজার, আক্রান্ত ৩ লাখের বেশি
বিশ্বজুড়ে নভেল করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ১৩ হাজার ছাড়িয়েছে, একই সঙ্গে তিন লাখের কোটা পার হয়েছে মোট আক্রান্তের সংখ্যা। ইতোমধ্যেই ১৮৮টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে প্রাণঘাতী এই ভাইরাস। সবশেষ তথ্য অনুসারে, এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ৭ হাজার ৬২৫ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ১৩ হাজার ৫০ জন।

চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৯৫ হাজার ৭৯৭ জন কোভিড-১৯ রোগী। চিকিৎসাধীন ১ লাখ ৯৮ হাজার ৭৭৮। এদের মধ্যে অন্তত ৯ হাজার ৩০০ জনের অবস্থা সঙ্কটাপন্ন। চীনে গতকাল নতুন করে ৪৬ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে, মারা গেছেন ছয়জন। এ নিয়ে সেখানে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়ছে ৮১ হাজার ৫৪ জন, মৃত্যু ৩ হাজার ২৬১ জনের।

দেশে আক্রান্ত বেড়ে ২৭
মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে দেশে নতুন করে আরও তিনজন আক্রান্ত হয়েছেন। ফলে ভাইরাসটিতে দেশে মোট আক্রান্ত হয়েছেন ২৭ জন। এছাড়া সংক্রমিত রোগীদের মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন আরও দুজন, ফলে মোট সুস্থ হয়েছেন পাঁচজন। তবে নতুন করে কারও মৃত্যু হয়নি। অর্থাৎ করোনায় দেশে মৃতের সংখ্যা এখন পর্যন্ত দুজনই।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা রোববার বিকেলে সংবাদ সম্মেলনে জানান, দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় সন্দেহভাজন হিসেবে আরও ৬৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে তিনজনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। সব মিলিয়ে দেশে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ২৭। এছাড়া আগে আক্রান্তদের মধ্যে তিনজন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছিলেন। এবার নতুন করে আরও দুজন সুস্থ হয়েছেন। ফলে মোট পাঁচজন সুস্থ হয়েছেন।

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা স্থগিত
করোনাভাইরাসের বিস্তাররোধে এপ্রিলে অনুষ্ঠিতব্য এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। আগামী ১ এপ্রিল এই পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল। রোববার দুপুরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল খায়ের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, পরীক্ষা আপাতত স্থগিত করা হলেও আগামী এপ্রিল মাসের প্রথম দিকে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার পরবর্তী তারিখ জানানো হবে।

আন্তঃশিক্ষাবোর্ড ও ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক বলেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত এ পরীক্ষা স্থগিত রাখা হবে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পরবর্তী ১৫ দিন পর পরীক্ষা আয়োজন করা হবে। এ বিষয়ে সভা করে এপ্রিল মাসের প্রথম দিকে পরবর্তী পরীক্ষার সময়সূচি ঘোষণা করা হতে পারে। ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা জানান, করোনাভাইরাসের জন্য এইচএসসি পরীক্ষা ১ এপ্রিল শুরু না করে এটি ঈদুল ফিতরের পর আয়োজন করার প্রস্তাব দেয়া হতে পারে। এরপর সুবিধামতো সময়ে এ পরীক্ষা আয়োজন করা যেতে পারে। তবে শিক্ষার্থীরা যাতে সেশনজটে না পড়ে, সেটি মাথায় রেখে এইচএসসি পরীক্ষার সংশোধিত সময়সূচি প্রকাশ করা হবে।