ঢাকা-১০ আসনের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২১ মার্চ অনুষ্ঠিত ভোটের ফলাফল বাতিল চেয়ে রিট আবেদন করা হয়েছে। রিটের বিবাদীরা হলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব ও আইন মন্ত্রণালয়ের সচিব।রোববার (২২ মার্চ) সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দ হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এই রিট আবেদন করেন।করোনার মধ্যে ভোটারের উপস্থিতি কম হওয়ায় এই রিট আবেদন বলে নিশ্চিত করেছেন আইনজীবী নিজে।

আরো পড়ুন : হোম কোয়ারেন্টাইনে বিদেশফেরত ৩০ বিচারক

তিনি জানান, করোনার কারণে নির্বাচনে ভোটাররা ভোট দিতে আসেন নাই, তাই তিনি এই রিট আবেদন করেছেন। সংবিধানের ১৫, ৩১ এবং ৩২ অনুযায়ী সরকার চিকিৎসা সেবাসহ অন্যান্য সেবা নিশ্চিত করে জীবনের নিরাপত্তা দেবে।

সংবিধানের ১২৩ (৪) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী সংসদ ভাঙিয়া যাওয়া ব্যতীত অন্য কোনো কারণে সংসদের কোনো সদস্য পদ শূন্য হইলে পদটি শূন্য হইবার ৯০ দিনের মধ্যে ওই শূন্যপদ পূর্ণ করার জন্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

তবে শর্ত থাকে যে, যদি প্রধান নির্বাচন কমিশনের মতে কোনো দৈব দুর্বিপাকের কারণে এই দফার নির্ধারিত মেয়াদের মধ্যে ওই নির্বাচন অনুষ্ঠান সম্ভব না হয় তাহলে ওই মেয়াদের শেষ দিনের পরর্বতী ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

আরো পড়ুন : প্রবাসফেরতদের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে তুলে দেয়ার নির্দেশ

কিন্তু সংবিধানের ১২৩ (৪) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দৈব দুর্বিপাকের কারণে নির্বাচন ৯০ দিন পরের ৯০ দিনের মধ্যেও নির্বাচন করতে পারে এখানে আইনের কোনো ব্যত্যয় ঘটতো না বরং মানুষের জীবন বাঁচানো যেতো।

উল্লেখ্য, ঢাকা-১০ আসনের উপনির্বাচনে বেসরকারিভাবে জয়লাভ করেছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী মো. শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন। ভোটের দিক থেকে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন বিএনপি প্রার্থী শেখ রবিউল আলম রবি।

শনিবার (২১ মার্চ) রাতে এ ফল ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা জিএম শাহাতাব উদ্দিন।

ফলাফল অনুযায়ী ঢাকা-১০ আসনে মোট ভোটার তিন লাখ ১২ হাজার ২৮১ জন। এর মধ্যে ‘নৌকা’ প্রতীকে শফিউল ইসলাম পেয়েছেন ১৫ হাজার ৯৫৫ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী শেখ রবিউল আলম রবি ‘ধানের শীষ’ প্রতীকে পেয়েছেন ৮১৭ ভোট।