ধামরাই উপজেলার রোয়াইল ইউনিয়নের কৃঞ্চনগরে অবস্থিত করোনাভাইরাস সংক্রমণ এড়াতে প্রস্তুত করা কোয়ারেন্টিন সেন্টারের বিভিন্ন কক্ষ থেকে ২৬টি সিলিং ফ্যান চুরি হয়েছে।

পরিত্যক্ত থাকা কৃঞ্চনগর ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালকে কোয়ারেন্টিনে পরিণত করা হয়। এ ছাড়াও ওই হাসপাতাল দীর্ঘদিন পরিত্যক্ত থাকায় হাসপাতালে ভেতর ও বাইরে ময়লা আবর্জনা রয়েছে।

আরো পড়ুন : সাভারে নতুন করে কোয়ারেন্টাইনে ১০ এক প্রবাসীকে জরিমানা ২০ হাজার

এ বিষয়ে রোয়াইল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল কালাম সামসুদ্দিন মিন্টু জানান, হাসপাতালটি দীর্ঘদিন ধরে পরিত্যক্ত থাকাতে নোংরা আবর্জনায় ভরে গেছে। তবে কোয়ারেন্টিন সেন্টার ঘোষণা করার পর কিছুটা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়েছে। ফ্যান চুরির বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নূর ইফফাত আরাকে বিষয়টি অবগত করা হয়েছে এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নূর ইফফাত আরা বলেন, ‘হাসপাতালটি দীর্ঘদিন ধরে পরিত্যক্ত ছিল, যার কারণে ফ্যান চুরি হয়েছে। তবে কোয়ারেন্টিন সেন্টার করার পর হাসপাতাল ভিতরে পরিষ্কার করা হয়েছে। বাইরে পরিষ্কার করতে হবে।’

আরো পড়ুন : সাভার প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল জলিল মাস্টারের ইন্তেকাল

নূর ইফফাত আরা বলেন, ‘হাসপাতালে বিদ্যুৎ সংযোগ থাকলেও বিদ্যুতের বিভিন্ন সমস্যা রয়েছে। উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তা আপা হাসপাতাল পরির্দশন করেছে। তিনি বলেছেন, এমপি সাহেবকে বলে হাসপাতালে সব সমস্যা সমাধান করা হবে।’

এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘ধামরাই উপজেলায় ইতিমধ্যে বিদেশ ফেরত ২১ জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। তাদের সঙ্গে আমরা প্রতিনিয়ত যোগাযোগ রাখছি তাদের কোন সমস্যা হচ্ছে কি না তা আমরা দেখছি।’

এদিকে করোনাভাইরাস নিয়ে জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করছে উপজেলার একমাত্র কোয়ারেন্টিন সেন্টারটি সম্পূর্ণরুপে রোগীবান্ধব বা ব্যবহার উপযোগী করা প্রয়োজন বলে মনে করছে এলাকাবাসী।