সিলেট সংবাদদাতা : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে সিলেটে আইসোলেশন ইউনিটে মৃত্যুবরণকারী যুক্তরাজ্যফেরত নারীর মুখের লালাসহ অন্য স্যাম্পল সংগ্রহ করবে আইইডিসিআর। আজ রোববার ওসমানী হাসপাতালের চিকিৎসকদের সহায়তায় ওই নারীর স্যাম্পল সংগ্রহের পর করোনায় মৃত ব্যক্তির দাফন নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রটোকল অনুযায়ী একটি নির্দেশনা তৈরি করা হয়েছে। সরকারি ওই নির্দেশনায় মৃতদেহ সংগ্রহ, পরিবহন, দাফনসহ প্রতিটি পর্যায়ের বিস্তারিত বিবরণ দেয়া হয়েছে। এই নির্দেশনা অনুযায়ীই সিলেটে মৃত্যু হওয়া ওই নারীর দাফন করা হবে।

আরো পড়ুন : কাশিমপুর কারাগারে যুদ্ধাপরাধী মামলার আসামির মৃত্যু

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিলেটের সিভিল সার্জন ডা. প্রেমানন্দ মন্ডল। তিনি বলেন, ওই নারীর মৃত্যুর বিষয়টিও আইইডিসিআরকে জানানো হয়েছে। তারা ঢাকা থেকে সিলেটের পথে আছেন। সিলেটে আসার পর আইইডিসিআর ওসমানী হাসপাতালের সহায়তা নিয়ে ওই নারীর মুখের লালাসহ নানা নমুনা সংগ্রহ করবে।

তিনি জানান, ওই নারী গত ৪ মার্চ যুক্তরাজ্য থেকে দেশে ফেরেন। করোনার বিভিন্ন উপসর্গ দেখা দেয়ায় গত ২০ মার্চ তাকে সিলেট শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালের আইসোলেশনে আনা হয়।

তিনি আরো জানান, ওই নারী যেসব উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন, সেসব উপসর্গ করোনার সঙ্গে কো-রিলেট করে। আইইডিসিআর এর প্রসিডিউর অনুযায়ী তার দাফন হবে।

আরো পড়ুন : চিকিৎসকের গাউন-মাস্কের অভাবে কপাল পুড়ছে রোগীদের

দাফন-সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে সিভিল সার্জন বলেন, নিহত নারীর গ্রামের বাড়ি সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে। নিহতের স্বজনরা চাচ্ছেন লাশ গ্রামের বাড়িতে নিয়ে দাফন করতে। তবে এ ব্যাপারে আমরা এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নিইনি।

তিনি বলেন, সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীও সকালে হাসপাতালে এসেছিলেন। তিনি বলেছেন সরকার চাইলে সিলেট শহরে ওই নারীর দাফনে জায়গা দেবে সিটি করপোরেশন।

রোববার ভোর সাড়ে ৩টায় করোনা সন্দেহে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অধিভুক্ত শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে (সদর হাসপাতাল) ভর্তি ওই প্রবাসী নারী মারা যান। তার বয়স ৬১ বছর বলে জানা গেছে। তিনি নগরের শামীমাবাদ এলাকায় বাসায় ছিলেন। তার গ্রামের বাড়ি সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার পাঠলীতে বলে জানা গেছে।