গণমাধ্যমকর্মীদের চকরিচ্যুত না করতে মালিকপক্ষের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘দুর্যোগের মধ্যে সবাই উৎকণ্ঠিত থাকে। এ সময় যেকোনও ধরনের চাকরিচ্যুতি অনভিপ্রেত ও দুঃখজনক। এ সময় মালিক পক্ষের যদি কোনও কারণে অসুবিধাও হয়, তারপরও সাংবাদিকদের চাকরিচ্যুত না করার জন্য তাদের প্রতি আমি অনুরোধ জানাচ্ছি।’

সোমবার (২৩ মার্চ) সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে) নেতাদের বিভিন্ন দাবির পরিপ্রেক্ষিতে তিনি এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের জন্য সম্প্রচার আইন হবে, গণমাধ্যমকর্মী আইন হবে। গণমাধ্যমকর্মী আইন মন্ত্রিসভা হয়ে আগামী পার্লামেন্টে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছি। যদি এটি সেখানে পাস হয়, তবে ইলেক্ট্রনিক-প্রিন্ট-অনলাইনসহ সব মিডিয়ার সাংবাদিকরা আইনি সুরক্ষা পাবেন। পাশাপাশি সম্প্রচার আইন তৈরিতেও আইন মন্ত্রণালয় কাজ শুরু করেছে। এই দুটি আইন হলে সব গণমাধ্যমকর্মীর আইনি সুরক্ষা দেওয়া সম্ভব হবে। সবারই আইনি সুরক্ষা প্রয়োজন। আমি আশা করি, খুব শিগগিরই গণমাধ্যমকর্মী আইনটি করতে পারবো।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘ইতোপূর্বে আমি ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতাসহ অন্যদের বলেছিলাম, গ্রুপ ইন্স্যুরেন্স করতে। মিডিয়া হাউজগুলো গ্রুপ ইন্স্যুরেন্স করলে হাউজের জন্যই ভালো। গ্রুপ ইন্স্যুরেন্স করলে কোনও সংবাদকর্মী অসুস্থ হলে কিংবা কোনও ধরনের দুর্ঘটনা বা অন্যকোনও কারণে তার কোনও অসুবিধা হলে, এর মাধ্যমে সহায়তা দেওয়া যায়। শুধু মিডিয়া হাউজগুলোই নয়; আমি মনে করি, এ ক্ষেত্রে সাংবাদিক ইউনিয়নগুলোও যোগ দিতে পারে।’

নবম ওয়েজ বোর্ড বাস্তবায়ন প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘নবম ওয়েজ বোর্ড নিয়ে অনেক কথাবার্তা হয়েছে। এটি একটি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে হয়েছে। এগুলো চাইলেই আমার পক্ষে এককভাবে করা সম্ভব নয়। আপনাদের বিষয়গুলো আমি জানি। যে ওয়েজ বোর্ডটি ঘোষণা হয়েছে, সেটি বাস্তবায়ন করা প্রয়োজন। সে লক্ষ্যে যে কমিটি গঠন করা দরকার ছিল, সেই মনিটরিং কমিটি আমরা করে দিয়েছি। সেখানে সাংবাদিক ইউনিয়নের প্রতিনিধিও থাকবেন। ওই কমিটি বিষয়টি মনিটর করবে। আশা করি, বিভিন্ন সংবাদপত্র নবম ওয়েজ বোর্ড বাস্তবায়ন করবে।’

করোনা পরিস্থিতিতে সাংবাদিকদের সুরক্ষার দাবি জানালে আওয়ামী লীগের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আমরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কথা বলে সাংবাদিকদের পারসোনাল প্রোটেকশনের জন্য কিছু পদক্ষেপ নেবো।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘করোনা ভাইরাস একটি বৈশ্বিক দুর্যোগ। এটি সবাইকে সম্মিলিতভাবে মোকাবিলা করতে হবে। একে অপরকে দোষারোপ করার সংস্কৃতি বাদ দিয়ে, ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবিলা করতে হবে।’

এ সময় সেখানে ছিলেন—ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ, সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু, বাসসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল কালাম আজাদ, সহসভাপতি আব্দুল কুদ্দস, যুগ্ম সম্পাদক খায়রুল আলম, সাংগাঠনিক সম্পাদক জিহাদুর রহমান জিহাদ, প্রচার সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, দফতর সম্পাদক জান্নাতুল ফেরদৌস চৌধুরী, জনকল্যাণ সম্পাদক সোহেলী চৌধুরী প্রমুখ।