ধামরাই প্রতিনিধি : সারা দেশে যখন করোনা আতঙ্কে জনজীবনে স্থবিরতা নেমে এসেছে ঠিক সেই মুহুর্তে কয়েকজন চায়না নাগরিক ফের ধামরাইয়ে অবৈধ ব্যাটারি কারখানা চালু করে স্থানীয় শ্রমিক দিয়ে ব্যাটারি উৎপাদন শুরু করেছে বলে জানা গেছে। গত এক মাস আগে পরিবেশ অধিদপ্তরের এনফোর্সমেন্ট উইং এর ভ্রাম্যমান আদালত জরিমানাসহ বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার পর উৎপাদন বন্ধ রাখার নির্দেশনা দিলেও মঙ্গলবার থেকে ফের ব্যাটারি তৈরী শুরু করেছে ধামরাইয়ের সূতিপাড়া ইউনিয়নের বেলীশ^র গ্রামে অবস্থিত জিয়াং সু স্টোরেজ ব্যাটারি কারখানয়। এখানে ইজিবাইক ও হ্যালোবাইকের ব্যাটারি তৈরী করা হয়। দীর্ঘ সাত বছর ধরে অবৈধভাবে এ কারখানাটি পরিচালনা করছে কয়েকজন চায়না নাগরিক। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শ্রমিক জানান, গত রবিবার শ্রমিকদের বাড়িতে খবর দিয়ে মঙ্গলবার থেকে কাজে যোগদান করান কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে আজ বুধবার মোবাইল ফোনে পরিবেশ অধিদপ্তরের ঢাকা জেলার উপপরিচালক শাহেদা বেগমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, জিয়াং সু স্টোরেজ ব্যাটারি কারখানাকে পরিবেশের ছাড়পত্র দেওয়া হয়নি। এখন যদি তারা কারখানাটি চালু ও ব্যাটারি উৎপাদন করে তাহলে পুনরায় অভিযান পরিচালনা করা হবে।

আরও পড়ুন >> মানিকগঞ্জে গোপনে লাশ দাফন,…

জিয়াং সু স্টোরেজ ব্যাটারি কারখানার পরিবেশ অধিদ্প্তরের ছাড়পত্র, ক্ষতিকারক সিসা প্লেট তৈরী, দূষিত পানি সরাসরি কৃষি জমির ক্ষতি করায় এবং বৈধ কোন কাগজপত্র না থাকায় গত ১৯ ফেব্রুয়ারী পরিবেশ অধিদপ্তরের এনফোর্সমেন্ট উইং এর ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাজী তামজিদ আহমেদ ১ লাখ ২০ হাজার টাকা জরিমানা, বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্নসহ উৎপাদন বন্ধ রাখার নির্দেশ প্রদান করেন।

একই দিনে ধামরাইয়ের ডাউটিয়াতে অর্গাস মেটাল প্রাইভেট লিমিটেড (ব্যাটারি তৈরী কারখানা) কারখানায় অভিযান চালিয়ে ২ লাখ টাকা জরিমানা ও বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন ও উৎপাদন বন্ধ রাখার নিদের্শ দেন একই আদালত। ওই কারখানাতে মেয়াদোত্তীর্ণ ছাড়পত্র এবং ব্যাটারি স্ক্রাব ভেঙ্গে ক্ষতিকারক লেড আহরন করায় জরিমানা করা হয়।