ব্যাটসম্যান হিসেবে সর্বকালের অন্যতম সেরা ভারতীয় ক্রিকেট ঈশ্বর শচিন টেন্ডুলকার। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি রান, সেঞ্চুরিসহ ওয়ানডে আর টেস্টের অজস্র রেকর্ড রয়েছে তার দখলে।

তবে বল হাতেও কম যাননি শচিন। তিন ফরম্যাট মিলে তার ঝুলিতে রয়েছে ২০১টি উইকেট। যার মধ্যে শুরু ওয়ানডেতেই শিকার করেছেন ১৫৪টি। এই ফরম্যাটে বল হাতে এমন এক রেকর্ড রয়েছে শচিনের, যা নেই বিশ্বের আর কোনো বোলারের।

আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে প্রায় নিয়মিতই বোলিং করতেন শচিন। ব্রেকথ্রু এনে দেয়ার ক্ষেত্রে ছিলো বিশেষ পারদর্শিতা। শুধু তাই নয়, ম্যাচের শেষ ওভারে অল্প রান আটকে রেখে ভারতকে ম্যাচও জিতিয়েছেন দুইবার।

ওয়ানডে ম্যাচের ৫০তম ওভারে ছয় বা তার কম রান ডিফেন্ড করার রেকর্ডে সবার ওপরেই রয়েছেন বোলার শচিন। তাও একবার নয়, দুই-দুইবার এ কীর্তি দেখিয়েছেন তিনি। যা নেই বিশ্বের অন্য কোনো বোলারের।

প্রথম ১৯৯৩ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে কলকাতার ইডেন গার্ডেনসে, ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অব বেঙ্গল কর্তৃক আয়োজিত জুবিলি টুর্নামেন্টের প্রথম সেমিফাইনাল ম্যাচ। ভারতের করা ১৯৫ রানের জবাবে শেষ ওভারে ৫ রান দরকার ছিলো প্রোটিয়াদের। তবে হাতে ছিল দুইটি উইকেট।

মনোজ প্রভাকর, জাভাগাল শ্রিনাথ, কপিল দেবদের ওভার বাকি থাকলেও, ভারতীয় অধিনায়ক বল তুলে দেন শচিনের হাতে। তিনি নিজে কোনো উইকেট নিতে পারেননি, তবে একটি রানআউটসহ মাত্র ৩ রান খরচ করে দলকে এনে দেন দুই রানের অবিশ্বাস্য এক জয়।

দ্বিতীয় বছর তিনেক পরে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে, মোহালিতে। তবে এদিন বোলার শচিনকে খুব বেশি কিছু করতে হয়নি। ভারতের করা ২৮৯ রানের জবাবে ৪৯ ওভার শেষে অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ ছিলো ৯ উইকেটে ২৮৪ রান।

ফলে শেষ ওভারে তাদের জয়ের জন্য ছয় রান, হাতে একটিমাত্র উইকেট। এবার অধিনায়ক ছিলেন শচিন নিজেই। রবিন সিংকে না দিয়ে নিজেই নেন শেষ ওভারের দায়িত্ব। প্রথম বলেই উইকেটরক্ষক দীনেশ মঙ্গিয়ার সরাসরি থ্রোতে রানআউট হন ব্র্যাড হগ। ভারত পায় ৫ রানের জয়।