করোনার ভয়াবহতা দিন দিন বেড়েই চলেছে। বাড়ছে মৃতের সংখ্যাও। প্রতিদিন হাজারো মানুষ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাচ্ছে। প্রতিষেধক আবিষ্কার না হওয়ায় এর থেকে বাঁচার একমাত্র উপায় ঘরে থাকা। অন্যের সংস্পর্শে না আসা। কারণ ভাইরাসটি ছোঁয়াচে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নিয়মিত হাত ধোয়া বা টিস্যুতে হাঁচি দেয়া ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমাতে পারে। এর বাইরেও আপনি কিছু প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিতে পারেন।

আরো পড়ুন : মোবাইলে সেবা পাবেন যে চিকিৎসকদের কাছ থেকে

গবেষণায় দেখা গেছে ভাইরাসটি বেশ কয়েক ঘণ্টা শক্ত কোনো কিছুর উপরে বেঁচে থাকতে পারে। অর্থাৎ প্রতিদিনের ব্যবহার্য জিনিসপত্র, ঘরের মেঝে এবং আসবাবপত্রের উপরিতলে এটি অবস্থান করতে পারে। আপনার বাসস্থান যতটা সম্ভব কম ঝুঁকিপূর্ণ নিশ্চিত করতে যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র (সিডিসি) ঘরের ‘উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ’ স্থানের তালিকা তৈরি করেছে। সেসব স্থান জীবাণুমুক্ত রাখার পরামর্শ দিয়েছে তারা। স্থানগুলো হলো-

> কিচেন কাউন্টার টপস

> টেবিল

> দরজার হাতল

> বাথরুমের ফিক্সচার

> টয়লেট

> টেলিফোন, মোবাইল 

> কি-বোর্ড

> ট্যাবলেট পিসি

> টেবিলের আশপাশে

> যেকোনো উপরিতল যেখানে রক্ত, মল বা ঘাম লেগে থাকতে পারে।

যে উপায়ে সুরক্ষিত থাকবেন

সিডিসির পক্ষ থেকে, ঘরের জিনিসপত্র নিয়মিত জীবাণুনাশক স্প্রে দিয়ে পরিষ্কার করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। এছাড়া স্প্রে ব্যবহারের সময় গ্লাভস পরার পাশাপাশি ঘরে বায়ু চলাচল নিশ্চিত করার কথাও বলা হয়েছে।

আরো পড়ুন : পোষা প্রাণী থেকেও কি ছড়াতে পারে করোনা ভাইরাস?

সিডিসি’র মতে, নিজের জিনিসপত্র পরিবারের অন্যদের সঙ্গে শেয়ার না করাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ। তারা বলছে, আপনার বাড়ির অন্যান্য লোক বা পোষা প্রাণীর সঙ্গে আপনার বাসন, চশমা, কাপ, খাবারের পাত্র, তোয়ালে বা বিছানা ভাগ করা উচিত নয়।’

এগুলো ব্যবহার করার পর সাবান এবং পানি দিয়ে ভালোভাবে ধুয়ে ফেলার পরামর্শ দিয়েছে সিডিসি।