প্রতিদিনের রান্নায় সবচেয়ে জরুরি ও আবশ্যিক একটি উপাদান হচ্ছে মসলা। বিভিন্ন ধরনের শুকনা ও গুঁড়া মসলার ব্যবহার হয় রান্নায় সঠিক স্বাদ আনার জন্য। করোনাভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলায় সাম্প্রতিক সময়ের অবস্থা বিবেচনায় অনেকেই প্রয়োজনের তুলনায় কিছুটা বেশি খাদ্য উপাদান ও আনুষঙ্গিক জিনিসপত্র কিনে মজুদ করছেন।

আরো পড়ুন : করোনায় নেলপালিশ থেকেও সাবধান

যার মাঝে বিভিন্ন ধরনের মসলাও রয়েছে। অন্যান্য উপাদানের মত মসলা রেফ্রিজারেটরে সংরক্ষণ করা সম্ভব নয়। ব্যবহার ও প্রয়োজনের উপর ভিত্তি করে রান্নাঘরে হাতের কাছে রেখে দিতে হয় মসলা। কিন্তু এভাবে মসলা কতদিন পর্যন্ত ভালো থাকে, ব্যবহার উপযোগী থাকবে? এছাড়া মসলার মেয়াদকাল কতদিন পর্যন্ত থাকে এবং মসলার স্বাদ বজায় থাকবে সেটাও প্রশ্ন।

এক্ষেত্রে প্রথমেই মসলার ধরনের বিষয়ে কথা বলতে হয়। রান্নায় ব্যবহৃত মসলা বেশ কয়েক প্রকারের হয়ে থাকে। গোটা মসলা, গুঁড়া মসলা, শুকনা মসলা, মিশ্র মসলা, ফ্রেশ মসলা।

আরো পড়ুন : দাম্পত্য জীবনে করোনা সমাচার

মসলা

সকল মসলার ধরন অনুযায়ী মসলার মেয়াদকাল নিম্নরূপ-

গোটা মসলা ভালো থাকবে ৪ বছর পর্যন্ত।

গুঁড়া মসলা ভালো থাকবে ৩ বছর পর্যন্ত।

শুকনা মসলা (উদ্ভিজ) ভালো থাকবে ৩ বছর পর্যন্ত।

মিশ্র মসলা ভালো থাকবে ২ বছর পর্যন্ত।

ফ্রেস মসলা ভালো থাকবে ১ সপ্তাহ পর্যন্ত।

যেকোন মসলা দীর্ঘদিনের জন্য ফ্রেশ ও ব্যবহার উপযোগী রাখার জন্য শুষ্ক, ঠান্ডা, আলোযুক্ত স্থানে কাঁচের মুখবন্ধ পাত্রে রাখতে হবে। বাতাসের আর্দ্রতা মসলার জন্য কোনভাবেই ভালো নয় এবং তুলনামূলক অন্ধকার স্থানে সময়ের আগেই মসলা তার ফ্রেশভাব হারিয়ে ফেলে। এছাড়া অনেকেই চুলার খুব কাছে মসলা রেখে দেন। যে কাজটি করা থেকে বিরত থাকতে হবে। রান্নাঘরে মসলা রাখা হলেও চুলার আশেপাশে রাখা যাবে না। সাধারণ নিয়ম মেনে মসলা সংরক্ষণ করতে পারলে নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত মসলার ফ্রেশভাব, স্বাদ ও গন্ধ বজায় থাকবে।