দেশে করোনাভাইরাসের চেয়ে দ্রুত ছড়াচ্ছে গুজব। নানা রকমের গুজবে বিভ্রান্ত হচ্ছে মানুষ। ‘তাপমাত্রা বাড়লে করোনা কমবে’ কিংবা ‘গরম পানি খেলে ভাইরাস মারা যায়’- এমন অনেক গুজব ছড়িয়েছে ইতোমধ্যে। এমনকি মাঝরাতে ছুটে চলে থানকুনি পাতা সংগ্রহ করতে। অথচ এসব কথা বিশ্বাস করা ঠিক নয়। জেনে নিন আরও কিছু গুজবের ধরন সম্পর্কে-

আরো পড়ুন : করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে যে কারণে দুই মিটার দূরে থাকবেন

১. যেকোনো বয়সের মানুষের করোনাভাইরাস হতে পারে। আগে থেকে অসুস্থ থাকলে আরও ভয়ঙ্কর হতে পারে করোনা।

২. গরম বা তাপমাত্রা বেশি থাকলেও করোনার জীবাণু ছড়াতে পারে। গরমে জীবাণু মরে যায় এমন কোনো স্পষ্ট প্রমাণ নেই।

৩. ঠান্ডা ও তুষারপাতে করোনাভাইরাস কমে না। গরম পানিতে গোসল করলেও করোনার জীবাণু মরে না।

৪. করোনার জীবাণু মারতে হ্যান্ড ড্রায়ার কোনো উপায় নয়। এখনো করোনার কোনো ওষুধই আবিষ্কার হয়নি।

আরো পড়ুন : জানেন কি কোন ব্লাড গ্রুপে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি

৫. স্টেরিলাইজেশনের জন্য অতি বেগুনি রশ্মি ব্যবহার করবেন না। এতে ত্বকে জ্বালাপোড়া হতে পারে।

jagonews24

৬. কারো জ্বর থাকলে থার্মাল স্ক্যানারে তা বোঝা সম্ভব। কিন্তু সেই জ্বর করোনাভাইরাস কি-না তা বোঝা সম্ভব নয়।

৭. সারা শরীরে অ্যালকোহল বা ক্লোরিন ছেটালে শরীরে ইতোমধ্যে ঢুকে যাওয়া করোনার জীবাণু মরবে না।

৮. নিউমোনিয়া বা এ ধরনের জ্বরের কোনো টিকা নেওয়া থাকলে করোনা হবে না- এমনটি ভাবা ঠিক নয়।

৯. নাকে নিয়মিত স্যালাইন ঘঁষলে করোনা হবে না এমনটা নয়। রসুনেও করোনা আটকানোর প্রমাণ নেই।

১০. জেনে রাখা ভালো, জীবাণুর ওপর অ্যান্টিবায়োটিক কাজ করে না। অ্যান্টিবায়োটিক কাজ করে ব্যাকটেরিয়ার ওপর।