চীনের উহান থেকে উৎপন্ন হওয়া প্রাণঘাতী করোনা এখন সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে। যা কেড়ে নিয়েছে হাজারো মানুষের প্রাণ। করোনা এখন মহামারির আকার ধারণ করেছে। যার প্রতিষেধক এখনো তৈরি করা সম্ভব হয়নি। 

যদিও এই ভাইরাসটিকে প্রাণঘাতী বলা হয়, তবে এতে আক্রান্ত বেশিরভাগ রোগী সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন। তাই আতঙ্কিত না হয়ে হতে হবে সচেতন। যেহেতু রোগটি ছোঁয়াচে, তাই জেনে রাখা জরুরি আপনি করোনায় আক্রান্ত হলে কী করবেন? মনে রাখবেন, আপনি সচেতন হলেই রক্ষা পাবে আপনার পরিবার, দেশ ও জাতি। চলুন জেনে নেয়া যাক করোনায় আক্রান্ত হলে তৎক্ষণাৎ যা করবেন-  

আরো পড়ুন : যে বিষয়গুলো গুগলে খুঁজবেন না

> আপনার শরীরে যদি করোনার লক্ষণ দেখা যায়, তবে আইডিসিআরের হট লাইনে ফোন করে আপনার উপসর্গ বলুন। তারা চিকিৎসক পাঠিয়ে আপনার নমুনা সংগ্রহ করবে। এই সময়ে আপনি একদমই আতঙ্কিত হবেন না।

> সবার আগে আপনি সেলফ কোয়ারান্টাইনে যান। পরিবারের সকল সদস্যদের থেকে দূরে থাকুন।  চিকিৎসকদের সঙ্গে ফোনে কথা বলুন। একান্তই হাসপাতালে যেতে হলে মাস্ক পরে যাবেন।

> পরিবার-পরিজন ও আত্মীয় স্বজনদের জানিয়ে দিন আপনি সেলফ কোয়ারান্টাইনে আছেন। তারা যেন আপনার বাড়ি ও কক্ষে না আসে। বাড়ির ভেতরে, পরিবারের সদস্যদের থেকে কমপক্ষে ৬ ফুট দূরে থাকুন। বিশেষত বয়স্ক সদস্যদের থেকে দূরে থাকুন। কারণ, তারা করোনায় আক্রান্ত হওয়ার সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে আছেন। সমস্ত দরজার হাতল, নব, স্যুইচ এবং আপনার স্পর্শ সমস্ত জিনিস স্যানিটাইজড করুন। 

> আপনার ব্যবহৃত জিনিস অন্যকে ব্যবহার করতে দেবেন না।। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ বা কোনো সোশ্যাল মিডিয়াতে পোস্ট করা পরামর্শ না মেনে চিকিৎসকদের দেয়া পরামর্শ মেনে চলুন। সোশ্যালে প্রচুর ভুল তথ্য পরিবেশিত হচ্ছে। প্রয়োজনে প্যারাসিটামল খেতে পারেন, তবে চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলে।

> প্রচুর পানি পান করুন। আর বিশ্রাম নিন। এই সময়ে দম চর্চা করতে পারেন। তাহলে আপনার ফুসফুস অক্সিজেন সমৃদ্ধ বাতাস পাবে।

> এই নিয়মগুলো মানলেই দেখবেন আগামী ৫ থেকে ৭ দিনের মধ্যে আপনি অনেকটাই সুস্থ বোধ করছেন। তাই উদ্বিগ্ন হবেন না। উদ্বেগ ছড়াবেন না।

> তবে অতিরিক্ত শ্বাসকষ্ট শুরু হলে তৎক্ষণাৎ হাসপাতালে যান। হয়তো আপনার ভেন্টিলেটর অক্সিজেনের প্রয়োজন হতে পারে। আপনি যদি বয়স্ক, অসুস্থ বা কমজোরি হন কিংবা আপনার ডায়াবেটিস বা হার্টের অসুখ থাকে, তাহলে চিকিৎসায় কোনো গাফিলতি করবেন না। দেরি না করে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে যাবেন। চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

> মনে রাখবেন, করোনা ভাইরাস অত্যন্ত সংক্রামক। তাই এমন ভাবে থাকুন যাতে সংক্রমণ না ছড়ায়। মাস্ক পড়ুন। হাঁচি-কাশির সময় মুখ ঢেকে নিন। নাক-মুখ মুছে টিস্যু পেপার বন্ধ ডাস্টবিনে ফেলুন। টিস্যু অনেকটা একসঙ্গে জমলে পুড়িয়ে দিন। নিজে বাঁচুন অন্যকেও বাঁচান।

> তিনটি কথা অবশ্যই মনে রাখবেন, প্রথমত, আপনার করোনা ভাইরাস হওয়ার সুযোগ খুব কম। দ্বিতীয়ত, যদি হয়ও তাহলে সঠিক নিয়ম মানলে এক সপ্তাহের মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠবেন। তৃতীয়ত, চীন এখন প্রায়ই করোনামুক্ত। অর্থাৎ, করোনাকেও জয় করা যায়।