পুরো বিশ্ব করোনাভাইরাস আতঙ্কে ভুগছে। খালি চোখে দেখা যায় না এমন ক্ষুদ্র এই শত্রুর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলা সহজ কথা নয়। তাই প্রতিটি মুহূর্তে থাকতে হচ্ছে সতর্ক।

জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে বেরনো যাবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে প্রশাসন। বারবার হাত ধোয়া, সবকিছু পরিষ্কার রাখতে বলছেন বিশেষজ্ঞরা। সারাদিন বাড়িতে থাকার কারণে চাপ বাড়ছে রান্নাঘরেও। এই সময় আপনার রান্নাঘরকে কীভাবে জীবাণুমুক্ত রাখবেন, তারই সহজ উপায় জেনে নিন-

১. রান্নার আগে আপনার হাত ভালো করে সাবান দিয়ে ধুয়ে নিতে ভুলবেন না। না হলে আপনার হাত থেকেই ব্যাকটেরিয়া খাবারে মিশে যেতে পারে।

২. রান্নাঘরের নোংরা বা সবজির খোসা যেকোনো জায়গায় ফেলে ছড়িয়ে রাখবেন না। মুখবন্ধ ডাস্টবিনেই সেটা রাখুন। প্রতিদিন এই নোংরা বাইরে নির্দিষ্ট স্থানে অবশ্যই ফেলে দিয়ে আসুন।

৩. বেঁচে যাওয়া খাবার এয়ার টাইট বক্সে ভরে ফ্রিজে রাখুন। ফ্রিজের তাপমাত্রা যেন সঠিক ভাবে সেট করা থাকে। না হলে খাবারে জীবাণু সৃষ্টি হতে পারে।

৪. খাবার ভালো করে সেদ্ধ করে তবেই খান। বিশেষত আমিষ খাবার ভালো সেদ্ধ না হলে সেখান থেকে নানা জীবাণু আপনার শরীরে বাসা বাঁধতে পারে।

আরও পড়ুন : ঘুমেই বাড়বে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা

৫. সবজি কাটার কাজে যে বটি বা ছুরি ব্যবহার করেন, সেটি প্রতিদিন ভালোভাবে পরিষ্কার করবেন। সবজি কেটে ছুরি না ধুয়ে রেখে দিলে সেখানে ব্যাকটেরিয়া জন্ম নেবেই।

৬. খাবার পরিবেশন হাত দিয়ে করবেন না। হাতা বা চামচ ব্যবহার করুন। নয়তো আপনার হাতের নোংরা খাবারে ঢুকে যাবে। খেতে বসার আগে ভালো করে হাত ধুয়ে নেবেন।করোনায় রান্নাঘর জীবাণুমুক্ত রাখতে যা করবেন
লাইফস্টাইল ডেস্ক

পুরো বিশ্ব করোনাভাইরাস আতঙ্কে ভুগছে। খালি চোখে দেখা যায় না এমন ক্ষুদ্র এই শত্রুর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলা সহজ কথা নয়। তাই প্রতিটি মুহূর্তে থাকতে হচ্ছে সতর্ক।

জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে বেরনো যাবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে প্রশাসন। বারবার হাত ধোয়া, সবকিছু পরিষ্কার রাখতে বলছেন বিশেষজ্ঞরা। সারাদিন বাড়িতে থাকার কারণে চাপ বাড়ছে রান্নাঘরেও। এই সময় আপনার রান্নাঘরকে কীভাবে জীবাণুমুক্ত রাখবেন, তারই সহজ উপায় জেনে নিন-

১. রান্নার আগে আপনার হাত ভালো করে সাবান দিয়ে ধুয়ে নিতে ভুলবেন না। না হলে আপনার হাত থেকেই ব্যাকটেরিয়া খাবারে মিশে যেতে পারে।

২. রান্নাঘরের নোংরা বা সবজির খোসা যেকোনো জায়গায় ফেলে ছড়িয়ে রাখবেন না। মুখবন্ধ ডাস্টবিনেই সেটা রাখুন। প্রতিদিন এই নোংরা বাইরে নির্দিষ্ট স্থানে অবশ্যই ফেলে দিয়ে আসুন।

৩. বেঁচে যাওয়া খাবার এয়ার টাইট বক্সে ভরে ফ্রিজে রাখুন। ফ্রিজের তাপমাত্রা যেন সঠিক ভাবে সেট করা থাকে। না হলে খাবারে জীবাণু সৃষ্টি হতে পারে।

৪. খাবার ভালো করে সেদ্ধ করে তবেই খান। বিশেষত আমিষ খাবার ভালো সেদ্ধ না হলে সেখান থেকে নানা জীবাণু আপনার শরীরে বাসা বাঁধতে পারে।

৫. সবজি কাটার কাজে যে বটি বা ছুরি ব্যবহার করেন, সেটি প্রতিদিন ভালোভাবে পরিষ্কার করবেন। সবজি কেটে ছুরি না ধুয়ে রেখে দিলে সেখানে ব্যাকটেরিয়া জন্ম নেবেই।

৬. খাবার পরিবেশন হাত দিয়ে করবেন না। হাতা বা চামচ ব্যবহার করুন। নয়তো আপনার হাতের নোংরা খাবারে ঢুকে যাবে। খেতে বসার আগে ভালো করে হাত ধুয়ে নেবেন।