গত মার্চে করোনাভাইরাসের প্রকোপে ভারত সফরের মাঝপথেই দেশে ফেরার সিদ্ধান্ত নেয় দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দল। দেশে ফেরার পর পুরো দলকেই পাঠানো হয় সেলফ-কোয়ারেন্টাইনে।

১৪ দিন পর্যন্ত তাদের নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। স্বস্তির খবর হলো, এই ১৪ দিনের ঘরবন্দি পর্ব শেষ হয়েছে প্রোটিয়া ক্রিকেটারদের এবং কারো মধ্যেই করোনার লক্ষণ দেখা যায়নি।

দক্ষিণ আফ্রিকা দলের প্রধান চিকিৎসক শোয়েব মাঞ্জরা বলেন, ‘এ সময়টায় আমরা খেলোয়াড়দের মধ্যে রোগের লক্ষণ এবং প্রকৃতি প্রকাশ পায় কি না সেটা পর্যবেক্ষণে রেখেছিলাম। ভাগ্য ভালো, খেলোয়াড়দের কারও মধ্যেই লক্ষণ আসেনি। পরীক্ষায় সবার ফল নেগেটিভ এসেছে।’

তবে কোয়ারেন্টাইন পিরিয়ড অতিবাহিত হয়ে গেলেও যে প্রোটিয়া ক্রিকেটাররা এখন একদম নির্বিঘ্নে ঘোরাফেরা করতে পারবেন, এমন নয়।

শোয়েব মাঞ্জরা বলেন, ‘আমরা সব খেলোয়াড়কে কোয়ারেন্টাইন পিরিয়ডের বাইরে নিয়ে যাচ্ছি। তবে তারা লকডাউনের এই সময়টায় সরকারি নিদের্শনা মেনে চলবেন।’

আগামী জুনে তিনটি করে ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি খেলতে শ্রীলঙ্কায় যাওয়ার কথা রয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার। তবে এই সফরের ভবিষ্যতও নির্ভর করছে করোনাভাইরাসের ওপর।