দেশে দেশে নিজের ভয়াল থাবা বসিয়েছে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস বা কোভিড-১৯। এখন পর্যন্ত মহামারিতে রূপ নেওয়া এই ভাইরাসকে দমন করতে সঠিক কোনো প্রতিষেধক আবিষ্কার হয়নি। যেটি রাতারাতি মানুষের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করে তুলবে। তবে স্বস্তির খবর হলো, এমন অনেক উপায় আছে, যেগুলো শরীরের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করে তুলতে পারে। এজন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো খাদ্যাভ্যাস।

করোনা ভাইরাস মোকাবিলার অংশ হিসেবে যুক্তরাজ্যের শীর্ষস্থানীয় পুষ্টিবিজ্ঞানীরা এরই মধ্যে ব্রিটিশ সরকারকে একটি চিঠি লিখেছেন। যেখানে তারা অনুরোধ জানিয়েছেন, সরকার যাতে জনগণকে খাদ্যাভাস বদলানোর পরামর্শ দেয়। এই অভ্যাসেই করোনার হাত থেকে বেঁচে যেতে পারে লাখ লাখ মানুষ।

গবেষকরা বলছেন, এতে কোনো সন্দেহ নেই যে, খাদ্যাভ্যাসের সঙ্গে মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার সম্পর্ক আছে। আর একজন ব্যক্তিকে একটি ভাইরাস কতটুকু কাবু করতে পারবে, সেটা নির্ভর করে তার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার ওপর। ব্রিটিশ গবেষকরা বলছেন, প্রতিদিন পর্যাপ্ত ফল আর শাকসবজি খেলেই কোনো ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হবেন না—এটা বলার সুযোগ নেই। তবে এটা বলার সুযোগ আছে, পর্যাপ্ত ফল আর শাকসবজি খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। আর রোগ প্রতিরোধক্ষমতা শক্তিশালী হলে কোনো ভাইরাস শরীরের ওপর খুব বেশি প্রভাব ফেলতে পারে না।

গবেষণায় দেখা গেছে, অনেকের শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়লেও কোনো উপসর্গ ছিল না। এর একটা কারণ হলো- ওই ব্যক্তির রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী।

করোনা ভাইরাসে বয়স্কদের মৃত্যুর হার বেশি। অন্যদিকে ৯ বছরের কম বয়সী কোনো শিশুর এখনো মৃত্যু হয়নি। এর কারণ এখনো নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি। তবে বিজ্ঞানীদের ধারণা, শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বয়স্কদের তুলনায় শক্তিশালী। এ কারণে ভাইরাসটি অল্প বয়স্কদের ওপর খুব বেশি প্রভাব ফেলতে পারে না।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নির্ভর করে শ্বেত রক্তকণিকার ওপর। এই শ্বেত রক্তকণিকা থেকেই উৎপন্ন হয় অ্যান্টিবডি, যা করোনা ভাইরাসের মধ্যে বিভিন্ন প্রাণঘাতী জীবাণুর বিরুদ্ধে লড়াই করে। ফলমূল, শাকসবজি, তৈলাক্ত মাছসহ অ্যান্টিঅক্সিডেন্টযুক্ত খাবার শ্বেত রক্তকণিকার কার্যকারিতা বাড়িয়ে দেয়। ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখলেও করোনা ভাইরাস মোকাবিলা সহজ হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।