দুদিন আগেও তার সমালোচনায় মেতে ছিল ভারতবাসী। করোনার এই সংকটে যখন ছোট-বড় অনেক তারকা দেশের জন্য এগিয়ে আসছেন তখন চুপ ছিলেন বলিউড সুপারস্টার শাহরুখ খান।

সেই নীরবতা ভেঙে বিপুল পরিমাণ অনুদান নিয়ে হাজির হলেন এ তারকা। দিল্লি, কলকাতা, মহারাষ্ট্রসহ বেশকিছু রাজ্যে তিনি দু হাত খুলে অনুদান দিয়েছেন। তার অনুদানের ঘোষণার পর থেকেই ভারতজুড়ে চলছে বন্দনা।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, কলকাতার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিসহ সরকারের অনেক নেতাই শাহরুখের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। সেই সঙ্গে অনেক তারকাও বাদশাহী স্টাইলে অনুদান দেয়ায় শাহরুখের প্রশংসা করছেন।

ভক্তদের কাছে শাহরুখ খান এখন ভারতের সুপারম্যান।

জানা গেছে, বিগ বাজেট সিনেমার প্রোডাকশনের মতো একেবারে ছক এঁকে দিয়েছেন কোন রাজ্যের জন্য তার কোন সংস্থা কী করবে। কোন কোন এলাকার দুস্থদের কাছে খাবারের প্যাকেট পৌঁছে যাবে। তবে কোথাও তিনি টাকার অঙ্ক প্রকাশ করেননি। আন্দাজ করা হচ্ছে সব মিলিয়ে ২০০ কোটিরও বেশি টাকা অনুদান হিসেবে ব্যয় করছেন এ অভিনেতা।

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী এম কেজরিওয়াল টুইট করে শাহরুখ খানকে ধন্যবাদ দিয়েছেন। প্রত্যুত্তরে কিং খান যা বললেন, তাতে আরও একবার শাহরুখে মুগ্ধ দেশবাসী। মুখে মুখে শুধু শাহরুখের কথাই ফিরছে।

শাহরুখ লিখেছেন, ‘স্যার ধন্যবাদ বলবেন না, আপনি শুধু আমাকে হুকুম করুন আর কীভাবে সাহায্য করতে পারি’। পাশাপাশি কেজরিওয়ালের উদ্দেশে এও বলেন যে, ‘আপনি হুকুম করলেই আমি আমার দিল্লিবাসী ভাইবোনদের জন্য কাজে লেগে পড়ব। ঈশ্বর চাইলে আমরা শিগগিরিই এই কঠিন পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠতে পারব।’ নেট দুনিয়ায় আপাতত শাহরুখ-কেজিওয়ালের এই কথোপকথনই নজর কেড়েছে ভারতবাসীর।

অন্যদিকে শাহরুখের কাছ থেকে সাহায্যের আশ্বাস পেয়ে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরেও বলিউড অভিনেতাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্যুইট করা হয়েছে মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধবের অফিসের পক্ষ থেকে। সেই টুইটের পালটা মারাঠি ভাষায় আবেগঘন একটি টুইট করে ধন্যবাদ জানিয়েছেন কিং খান। শাহরুখের কথায়, ‘আমরা সবাই একটাই পরিবার স্যার। এবং এরকম দুঃসময়ে একে অপরের পাশে দাঁড়ানো, পরস্পরের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়াই আমাদের কর্তব্য।’