হাত, নাক, মুখ এই তিনটি জিনিস দিয়েই করোনা সংক্রমণ বেশি ছড়ায়। এমনই জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। আর এখানেই উদ্বেগ বেশি। কারণ নিজের অজান্তেই আমরা অনেকবার মুখে হাত দেই। সেকথা মাথায় রেখেই ২০ মিনিট অন্তর হাত ধোয়ার কথা বলেছেন চিকিৎসকরা। তাহলে কিছুটা হলেও করোনা সংক্রমণ রোধ করা যাবে এবং মুখে মাস্ক পরার কথা বলা হচ্ছে ওই এক কারণেই।

অস্ট্রেলিয়ার সিডনি ইউনিভার্সিটির গবেষকরা জানিয়েছেন ঘণ্টায় ২৩ বার মানুষ স্বভাববশত নিজের মুখে হাত দিয়ে থাকেন। অর্থাৎ চোখ, গাল, ঠোঁট, নাক, কান, কপাল সব মিলে ২৩ বার মুখে হাত দেওয়া হয়েছে।

সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে মানুষ যখন নিজের কর্মক্ষেত্রে থাকেন। অর্থাৎ অফিসে থাকেন তখন অপেক্ষাকৃত কমবার মুখে হাত দেন। ঘণ্টায় ১৬ বার মুখে হাত দেন তারা।

সমীক্ষকরা জানিয়েছেন শুধু সাধারণ মানুষ নন চিকিৎসকরাও মুখে হাত দেওয়ার অভ্যাসের বশবর্তী। তারা ঘণ্টায় ১৯ বার মুখে হাত দিয়ে থাকেন। তবে একটাই বিষয় নিজেদের সুরক্ষার দিকটা তারা বেশি করে জানেন। সেকারণেই বারবার হাত ধোয়ার অভ্যাসটা তাদের আছে। যেটা সাধারণ মানুষের নেই।

খাওয়া, চুলকানো বা ময়লা পরিষ্কারের মতো প্রয়োজন ছাড়া মানুষ কেন মুখে হাত দেয়? এর একটা সহজ উত্তর হতে পারে বদভ্যাস বা মুদ্রাদোষ। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রে প্রকাশিত একটি গবেষণা বলছে ভিন্ন কথা। ২০১৪ সালের ওই গবেষণায় বলা হয়েছে, মুখে হাত দেওয়ার এই অভ্যাস ব্যক্তির মানসিক চাপ ও অস্বস্তি কমাতে সাহায্য করে।

ব্যক্তির এই আচরণ সাধারণত তার ছোটবেলা থেকে গড়ে ওঠা অভ্যাসের সঙ্গে সম্পর্কিত। গবেষণা বলছে, এর শুরু হয় মানসিক চাপ থেকে। আবার অনুকরণও একটি কারণ। বিশেষ করে শিশুরা অনুকরণপ্রিয়। তারা বয়োজ্যেষ্ঠ কাউকে দেখে দেখেও এ ধরনের আচরণে অভ্যস্ত হতে পারে। একাডেমিকভাবে বিষয়টিতে ‘এলটুএল বা লার্নিং টু লার্ন’ বলা হয়ে থাকে।