Closeup of a young man delivering a few packages to a house and knocking on its door



দেশে দেশে বিষাক্ত ছোবল বসিয়েছে নোভেল করোনা ভাইরাস। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের থাবা রুখতে লকডাউনের জন্য প্রতিটি সচেতন মানুষ যথাসাধ্য চেষ্টা করছেন ঘরে থাকার। এ জন্য অনেকেই কাঁচাবাজার ও অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ঘরে বসে কিনতে চেষ্টা করছেন।

আবার স্বল্প পরিসরে কিছু রেস্তোরাঁ হোম ডেলিভারি সার্ভিস দিচ্ছে। হোম ডেলিভারি প্ল্যাটফর্মগুলোতেও রেস্তোরাঁর খাবারের পাশাপাশি বিভিন্ন সুপারশপ, ফার্মেসি ও সেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান থেকে বাজার-সদাই, ওষুধ, ত্রাণ সামগ্রী ইত্যাদি পাওয়া যাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে বিদেশ থেকেও আসতে পারে পণ্য। কিন্তু প্রশ্ন হলো বাইরে থেকে আসা এই ডেলিভারির বাক্সগুলো কতটুকু নিরাপদ?

বিভিন্ন সমতলে করোনা ভাইরাস ৯ দিন বা তারও বেশি সময় বাঁচতে পারে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। ডেলিভারির এই বাক্সগুলো বিভিন্ন হাত ঘুরে, বেশ অনেকটা পথ পাড়ি দিয়ে আপনার ঘরে পৌঁছায়। তাই এগুলোতেও করোনা ভাইরাস থাকা অস্বাভাবিক নয়।

তাহলে এগুলোতে জীবাণুনাশক প্রয়োগ করা কতটুকু জরুরি? গ্লাভস-মাস্ক কি ব্যবহার করতে হবে খোলার সময়?

যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি) বলছে, ‘আপাত পরিস্থিতিতে কোনোটাই জরুরি নয়। কারণ, কয়েকদিন রাস্তায় থাকা কোনো ‘প্যাকেজ’ কিংবা পার্সেলের মাধ্যমে করোনা ভাইরাস ছড়ানোর সম্ভাবনা এখনও অনেক কম।’

এ দিকে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলছে, ‘একটি প্যাকেজ তার গন্তব্যে পৌঁছানো পর্যন্ত বিভিন্ন পরিস্থিতির ভেতর দিয়ে যায়, ফলে এটি থেকে ভাইরাস ছড়ানোর আশঙ্কাকে আমরা এখনও সীমিত বলেই ধারণা করছি।’

দিনেই মধ্যেই যেগুলো পৌঁছায় সেগুলোর ক্ষেত্রে করণীয় সম্পর্কে সিডিসি বলছে, ‘এখন পর্যন্ত বিভিন্ন সমতলে করোনা ভাইরাসকে সর্বোচ্চ ৯ দিন পর্যন্ত সক্রিয় পাওয়া গেছে। করোনা ভাইরাসের ‘আরএনএ’ বাঁচে সর্বোচ্চ ১৭ দিন। তবে এখন পর্যন্ত আমাদের সংগ্রহ করা তথ্য মোতাবেক রেস্তোরাঁর খাবার কিংবা বাজার-সদাই অনলাইনে অর্ডার করে হোম ডেলিভারি নেওয়া নিরাপদ। খাবার কিংবা তার প্যাকেটের মাধ্যমে করোনা ভাইরাস ছড়ানোর এখন পর্যন্ত কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।’

তারপরও সাবধানের মার নেই। আর বর্তমান পরিস্থিতিতে কোনো সাবধানতাই যেন সম্পূর্ণ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারছেনা। তাই যদি সম্ভব হয়, ডেলিভারি বাক্সগুলো নিজ চেষ্টায় জীবাণুমুক্ত করতে পারেন। তবে বাক্স ও ভেতরের জিনিস পরিষ্কার চাইতেও জরুরি হলো তা ধরার পর নিজের হাত ভালোভাবে পরিষ্কার করা।

কারণ বাক্স আপনার নাক-মুখের কাছাকাছি যাবে না, প্রয়োজনে বাক্সটি আপনি ঘরেই বাইরে রাখতে পারেন কিংবা তৎক্ষণাৎ নিরাপদ স্থানে ফেলে দিতে পারেন। আর সেখানে ভাইরাস থাকলেও তা আপনার হাতের মাধ্যমেই সংক্রমিত করতে পারবে। তাই বাক্স ফেলে হাত পরিষ্কারে মনযোগী হতে হবে।