করোনা আতঙ্কের মাঝেই বাতাসে গ্রীষ্মের আভাস। এই গরমে প্রশান্তির জন্য খেতে পারেন ছাতুর শরবত। স্বস্তি দেওয়ার পাশাপাশি পাবেন পুষ্টিও। শরীর ঠাণ্ডা করার সঙ্গে সঙ্গে আপনাকে সুস্থ ও পুষ্ট রাখতে ছাতুতে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, প্রোটিন, ফাইবার, কার্ব, আয়রন, ক্যালসিয়াম আর মিনারেলস।

গরমে হাঁসফাঁস করতে করতে ছোট-বড় সবার ঝোঁক, আইসক্রিম, কুলফি, লেমনেড, শেকস আর কোল্ড ড্রিঙ্কের দিকে। এতে হয়তো সাময়িক গরম কমে। কিন্তু পুষ্টি বাড়ে কি? এ দিকে, কুলকুল করে ঘামতে ঘামতে শরীর থেকে পানি, এনার্জি সবই বেরিয়ে যায় হু হু করে। তাই এমন কিছু পানীয় বাছতে হবে যা ভেতর থেকে শরীরকে পুষ্ট করে। আবার ঠাণ্ডাও রাখে। তেমনই এক উপকরণ ছাতুর সরবত।

পাশাপাশি আপনাকে সুস্থ ও পুষ্ট রাখতে ছাতুতে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, প্রোটিন, ফাইবার, কার্ব, আয়রন, ক্যালসিয়াম আর মিনারেলস। যা শরীরকে ঠাণ্ডা রাখার জন্য যথেষ্ট। একইভাবে পেট ভর্তি রাখে অনেকক্ষণ, পানির ঘাটতিও মেটায়। আর ভিটামিন, মিনারেলস তাজা রাখে আপনাকে।

রোজ সকালে বা তেষ্টা পেলেই এক গ্লাস ছাতুর সরবত পান মানে আপনি এনার্জিতে ভরপুর। অনেকে ছাতু মুড়ি দিয়ে মেখে বা শুধু ছাতু মরিচ, পেঁয়াজ দিয়ে মেখে নাস্তা হিসেবে খেতে ভালোবাসেন। অনেক সময়েই সেটা সব বয়সের জন্য সহজপাচ্য নয়।

আরও পড়ুন : করোনার মাঝে বাজার থেকে ফিরে যা করবেন

কিন্তু লেবুর রস, গোলমরিচ, নুন, অল্প মিষ্টি দিয়ে বানানো সরবত আট থেকে আশি-সব বয়স সহজেই হজম করতে পারে।

১০০ গ্রাম ছাতুতে ২০ গ্রাম প্রোটিন পাওয়া যায়। যা পেশি মজবুত করে। শরীর পোক্ত বানায়। আর অনেকক্ষণ পেট ভরে থাকায় বারেবারে খাওয়া বন্ধ হয়ে যায় সহজেই। যার ফলে ওবেসিটি কমে।