ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি : দেশে করোনার প্রাদুর্ভাবে চরম আতঙ্কময় পরিস্থিতিতে ধামরাইয়ে ত্রাণের দাবিতে বিক্ষোভ করেছে দরিদ্র ও অসহায় পরিবার। আজ শুক্রবার বিকেলে সূয়াপুর ইউনিয়নের কুটিরচর এলাকার ভ্যানচালক, দিনমজুর, কর্মহীন, বিধবা-বয়ষ্কসহ প্রায় দু’ শতাধিক অসহায় পরিবার ত্রাণের দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করে কুটিরচর নতুন মসজিদ মাঠে। এ সময় তারা সরকারের কাছে ত্রাণ পাওয়ার দাবি জানান।

ভুক্তভোগীরা বলেন, এলাকার অসংখ্য পরিবার করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে কর্মহীন হয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। কুটিরচর গ্রামের ভ্যানচালক স্বপন জানান, করোনার কারণে ভ্যান চালাইবার দেয় না। কোন কামাই রোজগার নাই। পরিষদ থাইক্যা কোন চাইল-ডাইল পাই নাই। আমাগো ত্রাণ না দিলে অহন বউ ছেলেমেয়েরে কি খাওয়ামু।

আরও পড়ুন >> ভয়াবহ খাদ্যসঙ্কটে পড়তে যাচ্ছে দরিদ্র মানুষ

বিধবা খোদেজা (৬৫) জানান, অন্যের বাড়িতে কাম করে একমাত্র ছেলেরে বিএ পাশ করাইছি। অহনও কোন চাকরি পায় নাই। করোনার কারণে কোন বাড়িতে কামের জন্য ডাকে না। কোন তরফ থেইকা কিছু পাই নাই। অহন কি খাইয়া বাচুম। সরকারে কাছে তিনি ত্রাণের দাবি জানান।

একই গ্রামের বিধবা সুফিয়া (৬৫), তারেকজান (৬৫) তারাও কোন ত্রাণ পায়নি। আবদুল আলি (৬০) সড়ক দুর্ঘটনায় পঙ্গুত্ব বরণ করছে। চিকিৎসায় জমিজমা সব শেষ। এখন অন্যের সাহায্য সহযোগিতা ছাড়া সংসার চালাতে পারে না। সেও এ পর্যন্ত কোন ত্রাণ পাননি। তাদের সকলের দাবি এ মুহুর্তে যেন সরকার বা কোন বিত্তবান খাদ্য সামগ্রী দিয়ে সহযোগিতা করে।

আরও পড়ুন >> করোনাভাইরাসে কোন জেলায় কতজন আক্রান্ত

সূয়াপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান সোহরাব বলেন, সরকার থেকে এ পর্যন্ত দেড় টন চাউল ও সাড়ে সাত হাজার টাকা পেয়েছি যা ১৫০জনকে দিতে পেরেছি। সরকার না দিলে আমি কিভাবে দেব।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সামিউল হক বলেন, সরকারের নিদের্শনা অনুযায়ী ত্রাণ পাওয়া উপযোগীদের তালিকা ইউনিয়ন কমিটি আমার কাছে জমা দিলে সে অনুযায়ী তারা ত্রাণ অবশ্যই পাবে।