কালিয়াকৈর প্রতিনিধি :  স্ত্রীর সঙ্গে প্রেম সন্দেহেই বন্ধু মহিমকে (৩২) গুলি করে মন্ত্রীর সেই গানম্যান কিশোর কুমার। এ তথ্য জানিয়েছে পুলিশ। তবে এ ঘটনায় মহিম বেঁচে গেলেও গুলিতে নিহত হয় আরেক বন্ধু শহিদ (৩০)। আহত মহিম বর্তমানে সাভারে এনাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এ ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া কিশোর মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আ ক ম মোজাম্মেল হকের গানম্যান।

শুক্রবার (১৭ এপ্রিল) কালিয়াকৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন মজুমদার প্রাথমিক তদন্তে এ তথ্য পেয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে উপজেলার কুতুবদিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত শহিদ কালিয়াকৈর উপজেলার সীমান্তবর্তী টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার আজগানা গ্রামের সবুর উদ্দিনের ছেলে। আর গুলিবিদ্ধ মহিম উদ্দিন একই এলাকার আব্দুল মালেকের ছেলে। মন্ত্রীর গানম্যান সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) কিশোর কুমার সরকার কালিয়াকৈরের কুতুবদিয়া গ্রামের নারায়ণ কুমারের ছেলে। কিশোর ও হতাহতরা পরস্পর বন্ধু।

আরও পড়ুন >> আশুলিয়ায় মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রীর গানম্যান এএসআই কিশোর গ্রেপ্তার

ওসি আলমগীর হোসেন মজুমদার বলেন, ‘কিশোরের বাড়িতে প্রায়ই এই তিন বন্ধু আড্ডা দিতো। সম্প্রতি কিশোরের সঙ্গে তার স্ত্রীর কলহ শুরু হয়। এর জেরে তার স্ত্রী ঢাকার বাসা থেকে বাবার বাড়ি টাঙ্গাইলের মির্জাপুর সদরে চলে যায়। এ ঘটনায় কিশোর তার স্ত্রীর সঙ্গে মহিমের প্রেমের সম্পর্ক আছে বলে সন্দেহ করে। ঘটনার দিন রাতে মাদক সেবনের দাওয়াত দিয়ে কিশোর তার বন্ধু মহিমকে হত্যার পরিকল্পনা করে। এরপর পূর্বনির্ধারিত স্থানে গিয়ে কিশোর অপেক্ষমাণ মহিম ও শহিদের দিকে গুলি করে। এতে ঘটনাস্থলে একজন নিহত হয় এবং অপরজন আহত হয়ে পালিয়ে যায়।’

এ বিষয়ে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আ. ক. ম. মোজাম্মেল হক বলেন, ‘কিশোরের বিরুদ্ধে যে তথ্য পাওয়া গেছে তাতে এটা ছিল পরিকল্পিত খুন। ঠান্ডামাথায় শহিদকে খুন করা হয়েছে। তাকে বরখাস্ত করে নতুন গানম্যান দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।’

এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে মামলা করেছেন। শুক্রবার সকালে শহিদের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।