দেশে দেশে বিষাক্ত ছোবল বসিয়েছে সময়ের সঙ্গে মহামারিতে রূপ নেওয়া করোনা ভাইরাস। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের থাবায় নিত্যদিন হু হু করে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। এ দিকে, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা প্রথম থেকেই বলে আসছেন বয়স্কদের করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকির কথা। কারণ ৬০ বছরের বেশি বয়স্ক অধিকাংশ মানুষ হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপসহ বিভিন্ন রোগে ভুগে থাকেন। এসব ব্যক্তিদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকে, তাই যে কোনো সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ে।

ফলে বয়স্কদের মধ্যে বাড়ছে দুশ্চিন্তা। তাই সংকটপূর্ণ এই সময়টায় পরিবারের অন্য সদস্যদের উচিত তাদের পাশে থাকা ও সাহস দেওয়া।

এ প্রসঙ্গে ভারতের মনোচিকিৎসক গৌতম বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, এমনিতেই বয়স্ক মানুষের মধ্যে শতকরা ২০ জন অবসাদে ভোগেন। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে একাকীত্ব, উদ্বেগ, অসহায়তা মিলেমিশে থাকে তাদের মধ্যে। আর এখন করোনার কারণে তারা মানসিক ও শারীরিকভাবে আরও বিপর্যস্ত হয়ে পড়ছেন।

এ ক্ষেত্রে বয়স্কদের দুশ্চিন্তা কমাতে যা করবেন

* এই মুহূর্তে সাবধানে থাকা ছাড়া আর কিছু করার নেই। অন্য কোনো রোগ থাকলে সামলে রাখতে হবে। ওষুধ ও খাবার খেতে হবে নিয়ম করে।

* ঘুম ঠিকমতো হচ্ছে কিনা সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। দিনের পর দিন ঘুম ঠিক না হলে ফোনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

* নতুন করে যাতে দুশ্চিন্তা না বাড়ে, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। যারা উদ্বেগ সহ্য করতে পারেন না, তাদের জন্য এ রকম পরিস্থিতি মারাত্মক। কাজেই নিতান্ত প্রয়োজন না হলে করোনা নিয়ে আলোচনা করবেন না।

* হাত ধোয়া, একটু দূরে দূরে থাকা ও বাইরে বেরুলে মাস্ক পরার যে নিয়ম আছে, তা মেনে চলতে হবে। তাদের বোঝাতে হবে এসব নিয়ম মানলেই বিপদ কমবে।

* সকাল-সন্ধ্যা ছাদে একটু হাঁটাহাটি, হালকা একটু স্ট্রেচিং বা অভ্যাস থাকলে একটু যোগাসন। কখন কী করা যেতে পারে তার একটা রুটিন করে নেওয়া ভালো।

আরও পড়ুন : বাড়িতে বসে চুল কাটবেন যেভাবে

* বিনোদন পেতে বই পড়া, গান শোনা, আড্ডা, সিরিয়াল, সিনেমা থেকে শুরু করে আত্মীয়-বন্ধুদের খোঁজ-খবর নেওয়া, বাড়ির কাজে সাহায্য করা ইত্যাদি নিয়ে ব্যস্ত হয়ে গেলে দুশ্চিন্তা কমবে।

তথ্যসূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা