চোখের সমস্যা রয়েছে অনেকেরই। ফলে চোখে ড্রপ ব্যবহার করতে হয়। অনেকের সুরমা ব্যবহারেরও অভ্যাস রয়েছে। রোজা ভেঙে যাওয়ার আশংকায় অনেকেই রোজায় চোখের সমস্যায় ড্রপ কিংবা সুরমা ব্যবহারে বিরত থাকে। ফলে তাদের অসুস্থতা বেড়ে যায়।

রোজা রেখে চোখে ড্রপ বা সুরমা ব্যবহারে কোনো ক্ষতি নেই। তাতে রোজা ভাঙবে না। চোখে ড্রপ দিলে তা গলায় কিংবা পেটে যাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। তাই রোজা রেখে চোখে ড্রপ দিলে বা সুরমা লাগালে রোজা ভাঙবে না এবং মাকরূহও হবে না। চোখের সমস্যায় রোজায় সুরমা ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছেন বিশ্বনবি। হাদিসে এসেছে-
– হজরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন এক ব্যক্তি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর কাছে উপস্থিত হয়ে আরজ করলেন, হে আল্লাহর রাসুল! আমার চোখে অসুখ। আমি কি রোজা অবস্থায় সুরমা ব্যবহার করব? তিনি (রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বললেন, ‘হ্যাঁ’ ব্যবহার কর।’ (তিরমিজি)

তাছাড়া প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নিজেও রোজা অবস্থায় চোখে সুরমা লাগিয়েছেন। উপরের হাদিস ও বিশ্বনবির নিজ আমল থেকে বুঝা যায় রোজা অবস্থায় চোখের চিকিৎসায় ড্রপ ও সুরমা ব্যবহার করা যাবে। হাদিসে আরও এসেছে-

– হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রোজা অবস্থায় সুরমা লাগিয়েছেন।’ (ইবনে মাজাহ)

– হজরত আবু রাফে রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রোজায় ইছমিদ সুরমা লাগাতেন।’ (তাবারানি, বায়হাকি)

সুতরাং যারা চোখের রোগে আক্রান্ত তাদের জন্য রোজা রেখে ড্রপ বা সুরমা ব্যবহারে ইসলামি শরিয়তে কোনো বাধা নেই। তাই চোখের সমস্যা ড্রপ বা সুরমা ব্যবহারের অজুহাতে রোজা থেকে বিরত থাকার কোনো সুযোগ নেই।