প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এভারকেয়ার হাসপাতালে (সাবেক অ্যাপোলো হাসপাতাল) চিকিৎসা নিচ্ছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। তবে তেমন কোনো জটিল সমস্যা ধরা পড়েনি তার শরীরে। বৃহস্পতিবার (১৮ জুন) দুপুর পর্যন্ত তিনি শারীরিকভাবে বেশ ভালো আছেন বলে জানিয়েছেন মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আব্দুল লতিফ বকসী।

বৃহস্পতিবার দুপুরে আব্দুল লতিফ বকসী  বলেন, ‘আজকে এভারকেয়ার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। তারা বলেছেন স্যার ভালো আছেন। তেমন কোনো জটিলতা ধরা পড়েনি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আসলে বাসায় আইসোলেশনে থাকা কঠিন। তাছাড়া হাসপাতালে থাকলে চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে থাকা যাবে তাই মূলত তিনি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।’

এদিকে শারীরিকভাবে খুব বেশি অসুস্থ না হলেও গতকাল বুধবার (১৭ জুন) সন্ধ্যায় বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি হাসপাতালে ভর্তি হন বলে  জানিয়েছেন মন্ত্রীর একান্ত সচিব মোহাম্মদ মাসুকুর রহমান সিকদার।

বুধবার সন্ধ্য সোয়া ৭টার দিকে তিনি বলেন, করোনা পজিটিভ হওয়ায় কিছুক্ষণ আগে মন্ত্রী এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এর আগে মন্ত্রী নিজেই করোনায় আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি  নিশ্চিত করেন।

জানতে চাইলে বুধবার বিকেল ৫টার দিকে বাণিজ্যমন্ত্রী  বলেন, ‘করোনার কিছু উপসর্গ দেখা দিলে বুধবার সকাল ৯টায় করোনা টেস্টের জন্য স্যাম্পল দেই। কিছুক্ষণ আগে নমুনার রেজাল্ট পজিটিভ আসে।’

করোনায় আক্রান্ত হলেও শারীরিকভাবে তিনি সুস্থ রয়েছেন। একই সঙ্গে দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন মন্ত্রী।

এদিকে চলমান জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশনে যোগ দিয়েছিলেন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। পাশাপাশি আক্রান্তের একদিন আগে গত সোমবার (১৫ জুন) সম্পূরক বাজেট পাস হওয়ার সময় অধিবেশন কক্ষে উপস্থিত ছিলেন তিনি।

মন্ত্রীর একান্ত সচিব মোহাম্মদ মাসুকুর রহমান সিকদার সম্পূরক বাজেট পাস হওয়ার সময় অধিবেশন কক্ষে টিপু মুনশি উপস্থিত থাকার বিষয়টি  নিশ্চিত করেছেন।

২০১৮ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রংপুর-৪ আসন থেকে তৃতীয়বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন মুক্তিযোদ্ধা টিপু মুনশি।

২০১৯ সালের জানুয়ারিতে মন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান তিনি। তৈরি পোশাক শিল্পের উদ্যোক্তা টিপু মুনশি বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি।

টিপু মুনশি ছাড়াও মন্ত্রিসভার কয়েকজন সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিংয়ের আক্রান্ত হওয়ার খবর আসে গত ৬ জুন। এরপর ১২ জুন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, তার স্ত্রী লায়লা আরজুমান্দ বানু এবং মন্ত্রীর একান্ত সচিব (পিএস) হাবিবুর রহমানের আক্রান্ত হওয়ার খবর আসে।

গত ১৪ জুন রাতে বেইলি রোডের বাসায় অসুস্থ হয়ে পড়লে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আবদুল্লাহকে ঢাকা সিএমএইচে নেয়া হয়। সেখানে রাতেই তার মৃত্যু হয়। পরে নমুনা পরীক্ষায় করোনা সংক্রমণ পাওয়া যায়।