চলতি (২০১৯-২০) অর্থবছরে জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগে তিনজন কর্মকর্তা-কর্মচারী শুদ্ধাচার পুরস্কার পাচ্ছেন। এদের মনোনীত করে জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগ থেকে আদেশ জারি করা হয়েছে।

জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের আওতাধীন হাইড্রোকার্বন ইউনিটের মহাপরিচালক এ এস এম মঞ্জুরুল কাদের শুদ্ধাচার পুরস্কার পাচ্ছেন।

বাছাই করা কমিটির সুপারিশ অনুসারে গ্রেড-১ থেকে গ্রেড-১০-এর অন্তর্ভুক্ত কর্মকর্তাদের মধ্যে উপসচিব ফারহানা রহমান ও গ্রেড-১১ থেকে গ্রেড-১০-এর কর্মচারীদের মধ্যে অফিস সহায়ক মো. সেলিম মিয়া শুদ্ধাচার পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন।

‘শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রদান নীতিমালা, ২০১৭’ অনুযায়ী পুরস্কার হিসেবে তারা একটি সার্টিফিকেট এবং এক মাসের মূল বেতনের সমপরিমাণ অর্থ পাবেন।

সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শুদ্ধাচার চর্চায় উৎসাহ দেয়ার লক্ষ্যে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ‘শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রদান নীতিমালা, ২০১৭’ প্রণয়ন করে। নীতিমালার ৪ ধারা অনুযায়ী ১১টি ক্ষেত্র ও ১৯টি সূচক বিবেচনায় নিয়ে শুদ্ধাচার পুরস্কার দেয়ার জন্য তিনজন কর্মকর্তা-কর্মচারী নির্বাচন করা হয়। শুদ্ধাচার পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত কিছু গুরুত্বপূর্ণ গুণাবলি হচ্ছে-পেশাগত জ্ঞান ও দক্ষতা, সততার নিদর্শন, নির্ভরযোগ্যতা ও কর্তব্যনিষ্ঠা, শৃঙ্খলাবোধ, সহকর্মীদের সঙ্গে আচরণ, সেবাগ্রহীতার সঙ্গে আচরণ, প্রতিষ্ঠানের বিধি-বিধানের প্রতি শ্রদ্ধাশীলতা, সমন্বয় ও নেতৃত্বদানের ক্ষমতা, তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারে পারদর্শিতা, পেশাগত স্বাস্থ্য ও পরিবেশবিষয়ক সচেতনতা, উদ্ভাবনী চর্চার সক্ষমতা, বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি বাস্তবায়নে তৎপরতা, সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার, স্বপ্রণোদিত তথ্য প্রকাশে আগ্রহ, উপস্থাপন দক্ষতা, ই-ফাইল ব্যবহারে আগ্রহ, অভিযোগ প্রতিকারে সহযোগিতা করা।