মহেন্দ্র সিং ধোনির মতো সফল অধিনায়ক কি আর পাবে ভারত? দেশকে আইসিসির তিনটি বড় ট্রফি জিতিয়েছেন সাবেক এই ক্যাপ্টেন কুল। তার সমান অর্জন নেই আর কোনো অধিনায়কের।

বিরাট কোহলি অধিনায়ক হিসেবে সাফল্য পাচ্ছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত তার অধীনে বড় আসরে একটি ট্রফিও জিততে পারেনি ভারত। তিনটি ট্রফি জিতে ধোনির কাতারে যাওয়া তার জন্য খুব সহজ হবে না।

তবে একজনের মধ্যে ধোনির মতো সম্ভাবনা দেখেন ভারতের অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান সুরেশ রায়না। আইপিএলের দল চেন্নাই সুপার কিংসে ধোনির সঙ্গে দীর্ঘদিন খেলা ও বন্ধুপ্রতিম রায়নার মতে, রোহিত শর্মাই পারেন ভারতের পরবর্তী ধোনি হতে।

রায়নার এমন বিশ্বাসকে একেবারে ফেলনা বলার উপায় নেই। ভারতের বর্ষীয়ান এই ব্যাটসম্যান ধোনির অধীনে যেমন খেলেছেন, খেলেছেন রোহিত শর্মার অধীনেও।

রোহিত বরাবরই ভারতের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তবে যখনই সুযোগ পেয়েছেন, কাজে লাগিয়েছেন শতভাগ। ২০১৮ সালের নিদাহাস ট্রফি বা এশিয়া কাপ জয় বলুন, কিংবা আইপিএলে রেকর্ড চারবার মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সকে চ্যাম্পিয়ন বানানো। অধিনায়ক হিসেবে রোহিতের সাফল্য ঈর্ষণীয়।

এক ক্রিকেট পডকাস্টে রায়না মারকুটে এই ওপেনারকে নিয়ে বলেন, ‘আমি তাকে বলব ভারতীয় ক্রিকেটের পরবর্তী ধোনি। আমি তাকে দেখেছি (নেতৃত্ব দিতে)। সে খুবই শান্ত থাকে, শুনতে পছন্দ করে, খেলোয়াড়ের আত্মবিশ্বাস জোগাতে পারে। আর সব কথার বড় কথা, সে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিতে পছন্দ করে। যখন একজন অধিনায়ক দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেয় এবং ড্রেসিংরুমের পরিবেশকে সম্মান করে, তখন আর কিছু লাগে না।’

রায়না যোগ করেন, ‘সে ভাবে, দলের সবাই অধিনায়ক। আমি তাকে দেখেছি। যখন বাংলাদেশে আমরা এশিয়া কাপ জিতি, আমি তার অধীনেই খেলেছিলাম। আমি দেখেছি শার্দুল (ঠাকুর), ওয়াশিংটন সুন্দর এবং (ইয়ুজবেন্দ্র) চাহালের মতো তরুণ খেলোয়াড়দের সে কিভাবে আত্মবিশ্বাসী করে তুলে।’

রেকর্ডও রোহিতের পক্ষেই কথা বলছে। ভারতীয় দলকে ১০টি ওয়ানডেতে নেতৃত্ব দিয়ে ৮টিতেই জয় এনে দিয়েছেন এই ওপেনার। ২০ টি-টোয়েন্টির মধ্যে তার অধীনে ভারত জিতেছে ১৬টি।

আর আইপিএলে শিরোপা (৪টি) তো ধোনির চেয়েও বেশি। রায়না বলেন, ‘মহেন্দ্র সিং ধোনির পর সে অন্যতম সেরা, দুর্দান্ত। এমএসের চেয়ে (আইপিএলে) সে বেশি ট্রফি জিতেছে। তবে আমি বলব তারা দুজনই প্রায় একরকম। তাদের দুজনই অধিনায়ক হিসেবে শুনতে পছন্দ করে। যখন আপনার অধিনায়ক শুনবে, আপনি অনেক সমস্যার সমাধান পেয়ে যাবেন, এতে খেলোয়াড়দের মানসিক বাধাগুলোও দূর হয়ে যায়। তাই আমার চোখে তারা দুজনই অসাধারণ।’