মালয়েশিয়ায় গ্রেফতার বাংলাদেশি তরুণ রায়হান কবির বলেছেন, করোনার সময় প্রবাসীদের প্রতি যে আচরণ তিনি দেখেছেন সেটাই বলেছেন। তবে তিনি মালয়েশিয়ার কাউকে আহত করতে চাননি।

বুধবার (২৯ জুলাই) বেলা ১১টায় রায়হান কবিরের সঙ্গে দেখা করর পর এ তথ্য জানান তার আইনজীবী সুমিতা শান্তিনি কিষনা।

তিনি বলেন, রায়হান জানিয়েছে গ্রেফতারের পর তার সঙ্গে কোনো দুর্ব্যবহার করা হয়নি। জিজ্ঞাসাবাদে রায়হান ইমিগ্রেশন পুলিশকে বলেছে, করোনা চলাকালে তিনি যা দেখেছেন তাই বলেছেন এবং এগুলো তার একান্তই নিজস্ব মতামত। তবে মালয়েশিয়া বা এখানকার কোনো নাগরিককে তিনি আহত করতে চাননি।

রায়হান জানিয়েছেন, তিনি দ্রুত দেশে ফিরতে চান।

এর আগে গত সোমবার আইনজীবীরা রায়হানের সঙ্গে দেখা করতে মালয়েশিয়ান ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষের কাছে অনুমতি চাইলে তারা জানান, পরে তারা দেখা করার তারিখ দেবেন। বুধবার বেলা ১১টায় সেই তারিখ দেয়া হয়।

নির্ধারিত সময়ে রায়হানের সঙ্গে কথা বলেন আইনজীবীরা। এ সময় ইমিগ্রেশনের কর্মকর্তাদের পাশাপাশি পুলিশ কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, মালয়েশিয়ায় অভিবাসীদের প্রতি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী চলতি লকডাউনে বৈষম্যমূলক ও বর্ণবাদী আচরণ নিয়ে ‘লকডআপ ইন মালয়েশিয়াস লকডাউন’ শিরোনামে গত ৩ জুলাই ২৫ মিনিটের একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদন আল-জাজিরা টেলিভিশনে প্রচারিত হয়। সেখানে সাক্ষাৎকার দেন রায়হান কবির।

তবে প্রতিবেদনটি প্রচারিত হওয়ার পর মালয়েশিয়া সরকার এর তীব্র নিন্দা জানিয়ে আল-জাজিরার এমন প্রতিবেদনকে ‘ভিত্তিহীন ও মিথ্যাচার’ বলে অভিহিত করে। এরপর রায়হান কবিরের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির সঙ্গে সঙ্গে দেশটিতে রায়হান কবিরের ওয়ার্ক পারমিটও (ভিসা) বাতিল করে।