বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপ বাছাইয়ের বাকি চার ম্যাচের জন্য প্রাথমিক দলে ডাক পাওয়া ৩৬ ফুটবলারকে তিন ভাগে ক্যাম্পে ওঠানো শুরু হচ্ছে বুধবার থেকে। করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য প্রতিদিন ১২ জন করে ফুটবলার ওঠানো হবে গাজীপুরের সারা রিসোর্টে। নতুন ডাক পাওয়া এবং অপেক্ষাকৃত জুনিয়রদের রাখা হয়েছে ৫ আগস্টের তালিকায়। তারপর ১২ জন করে ওঠার কথা ৬ ও ৭ আগস্ট।

শেষ দিনে যে ১২ জনকে ক্যাম্পে উঠতে বলা হয়েছে তাদের বেশিরভাগই সিনিয়র ফুটবলার। প্রথমবারের মতো ডাক পাওয়া ফিনল্যান্ড প্রবাসী তারিক রায়হান কাজী এবং অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়াকে যোগ দিতে বলা হয়েছে শেষ দিন, ৭ আগস্ট। কিন্তু নির্ধারিত সময়ে দুই জনের কারও পক্ষেই ক্যাম্পে যোগ দেয়া সম্ভব নয়। সোমবার পর্যন্ত কেউই ঢাকায় আসার ফ্লাইট নিশ্চিত করতে পারেননি।

ডেনমার্ক ও ফিনল্যান্ড- দুই দেশ থেকেই উড্ডয়ন করা এখনও বেশ কঠিন। বিশেষ করে এশিয়ায় ঐ দুটি দেশের নাগরিকদের ভ্রমণে রয়েছে বেশি কড়াকড়ি। তাই তারা কিভাবে ঢাকায় এসে জাতীয় দলের ক্যাম্পে যোগ দেবেন তা নিশ্চিত করতে পারেননি। ১৬ আগস্ট ইংল্যান্ড থেকে কোচরা চলে আসবেন সেটা একপ্রকার নিশ্চিত। তবে দুই প্রবাসী ফুটবলার কবে আসবেন সে নিশ্চয়তা পাওয়া যায়নি বাফুফে থেকে।

প্রধান কোচ জেমি ডে ইংল্যান্ড থেকে জাগো নিউজকে বলেছেন, ‘জামাল ও তারিকের এ মুহুর্তে আসা কঠিন। আমার মনে হয় না, ২০ আগস্টের আগে তারা কোনও ফ্লাইটের ব্যবস্থা করতে পারবে। এ সময়টা আসলেই বেশ কঠিন।’

এখনও টিকিট নিশ্চিত না হলেও কোচ জেমি ডে আশা করছেন, সহকারী স্টুয়ার্টকে নিয়ে ১৬ আগস্ট তিনি আসতে পারবেন। তবে ফিটনেস কোচ, গোলরক্ষক কোচ ও ফিজিও কবে নাগাদ আসতে পারবেন তা নিশ্চিত নন জেমি ডে।

বাফুফে সাধারণ সম্পাদক মো. আবু নাইম সোহাগ অবশ্য বলছেন, ‘ইংল্যান্ড থেকে আমরা ৫ জনকেই একসঙ্গে ফ্লাই করানোর চেষ্টা করব। যদিও নতুন যে তিনজন আসবেন ফিটনেস কোচ, ফিজিও ও গোলরক্ষক কোচ তাদের নিয়োগ এখনও চূড়ান্ত হয়নি। দুই-তিনের মধ্যেই আমরা নতুন চারজন চূড়ান্ত করে ফেলব এবং তাদের ভিসার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পাঠাব।’

কোচদের আসার দিনক্ষণ সম্পর্কে বাফুফে সাধারণ সম্পাদক ধারণা দিতে পারলেও পারেননি জামাল আর তারিকের ফ্লাইটের, ‘আশা করি ইংল্যান্ড থেকে কোচিং প্যানেলের পাঁচজন ১৬ আগস্ট ফ্লাই করতে পারবেন। তবে দুই প্রবাসী ফুটবলার জামাল ভূঁইয়া ও তারিক কাজীর বিষয় নিয়ে আমরা কাজ করছি। ঢাকায় আসার যে পথগুলো আছে সেগুলো জানাতে বলেছি তাদের। তাদের ক্যাম্পে যোগ দিকে এক-দেড় সপ্তাহ দেরি হতে পারে।’

জামাল ভূঁইয়া ও তারিক রায়হান কাজীর সঙ্গে স্থানীয় যে ১০ জনের ৭ আগস্ট শেষদিন ক্যাম্পে যোগ দেয়ার কথা তারা হলেন-তৌহিদুল আলম সবুজ, মামুনুল ইসলাম মামুন, আশরাফুল ইসলাম রানা, নাবিব নেওয়াজ জীবন, সাদ উদ্দিন, শহিদুল আলম সোহেল, তপু বর্মন, আতিকুর রহমান ফাহাদ, রায়হান হাসান ও ইয়াসিন খান।

৬ আগস্ট দ্বিতীয় দিনে যোগ দেবেন- আনিসুর রহমান জিকু, সুশান্ত ত্রিপুরা, রবিউল হাসান, আরিফুর রহমান, মাসুক মিয়া জনি, মতিন মিয়া, সোহেল রানা, মোহাম্মদ ইব্রাহিম, রহমত মিয়া, রিয়াদুল হাসান, রাবিক হোসাইন ও টুটুল হোসেন বাদশা।

৫ আগস্ট প্রথম দিন যোগ ক্যাম্পে যোগ দেবেন- পাপ্পু হোসেন, বিশ্বনাথ ঘোষ, নাজমুল ইসলাম রাসেল, ম্যাথিউস বাবু, সুমন রেজা, ফয়সাল আহমেদ ফাহিদ, মানিক হোসেন মোল্লা, মনজুরুর রহমান মানিক, মো. আবদুল্লাহ, ইয়াসিন আরাফাত, বিপুলু আহমেদ ও মাহবুবুর রহমান সোহেল।

বিশ্বকাপ বাছাইয়ের বাকি চার ম্যাচের তিনটিই ঘরের মাঠে খেলবে বাংলাদেশ। তিনটি ম্যাচই হবে সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে। ৮ অক্টোবর আফগানিস্তানের বিপক্ষে, ১২ নভেম্বর ভারতের বিরুদ্ধে এবং ১৭ নভেম্বর ওমানের বিপক্ষে হোম ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। কাতারের বিরুদ্ধে অ্যাওয়ে ম্যাচটি ১৩ অক্টোবর দোহায়।

‘ই’ গ্রুপে কাতার ১৩ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা ওমানের পয়েন্ট ১২। এরপরই আছে আফগানিস্তান ৪ পয়েন্ট নিয়ে। চতুর্থ স্থানে থাকা ভারতের পয়েন্ট ৩ এবং সবার নিচের থাকা বাংলাদেশের ১।