আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘বিএনপি যেকোনও নির্বাচনের আগেই হেরে যায়। নির্বাচন এলেই তারা তারস্বরে চিৎকার শুরু করে। আসলে হারার ভয়ে তারা আগে থেকেই সেই নির্বাচন নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করে। কেননা অতীত অভিজ্ঞতায় আমরা দেখেছি বিএনপি জিতলে সব ঠিক আর হারলে সব বেঠিক। এই মনস্তাত্ত্বিক বিভ্রান্তি ও দ্বন্দ্ব থেকে তদের বেরিয়ে আসা দরকার।’

মন্ত্রী সোমবার (৩১ আগস্ট) সকালে মুন্সীগঞ্জ সড়ক বিভাগের অধীনে নবনির্মিত পরিদর্শন বাংলো উদ্বোধনকালে একথা বলেন। ওবায়দুল কাদের ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন।

বিএনপি মহাসচিবের ‘সরকারের জনসমর্থন নেই’ মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘জনসমর্থন আছে কী নেই তার মানদণ্ড কী?  সে অভিন্ন মাপকাঠিতে বিএনপির কী জনসমর্থন মেপে দেখেছেন? নির্বাচন যদি মানদণ্ড হয় সেক্ষেত্রে সাম্প্রতিক নির্বাচনগুলোর দিকে তাকালে বিএনপির অবস্থান স্পষ্ট। যারা আন্দোলনে পরাজিত হয়, পরবর্তী নির্বাচনেও তারা পরাজিত হয়। বিএনপি আন্দোলন ও নির্বাচন দুটোতেই পরাজিত। তাই  জনগণও তাদের প্রত্যাখ্যান করেছে। আন্দোলন ও নির্বাচনে ব্যর্থ হয়ে জনগণ যাদের বারবার প্রত্যাখ্যান করে তাদের মুখে এমন কথা শোভা পায় না।’

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আপনি কীভাবে জয় পেলেন? জিতলে ঠিক আর হারলে সব বেঠিক।’

সেতুমন্ত্রী বলেন, জাতীয় সংসদের  আসন্ন ৫টি আসনে উপনির্বাচনে একটি আসনের মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। অন্য আসনগুলোয় তফসিল ঘোষণার পর প্রার্থী বাছাই বা চূড়ান্ত করতে দলের সভাপতির ওপর মনোনয়ন বোর্ড সর্বসম্মতিক্রমে দায়িত্ব অর্পণ করেছে।