রাজবাড়ী সংবাদদাতা :

পদ্মার স্রোত, নাব্য সংকট ও ঘাট ভাঙনে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় যানবাহনের বাড়তি চাপ পড়েছে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটের উভয় ঘাটে। তবে অবিশ্বাস্য কাণ্ড হচ্ছে ঘাটে কাঁঠালবাড়ীর যানবাহনের চাপ থাকলেও ভোগান্তি ও দীর্ঘ অপেক্ষা ছাড়াই যাত্রীবাহী পরিবহন ও ছোট গাড়ি পারাপার হচ্ছে। এছাড়া দৌলতদিয়া প্রান্তে অল্প কিছু পণ্যবাহী ট্রাক সিরিয়ালে রয়েছে বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে দৌলতদিয়া ঘাট বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। তবে সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যানবাহনের চাপ বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

যাত্রীরা জানান, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে সারা বছর কোনো না কোনো ভোগান্তি থাকে। গরমে নাব্য সংকট ও বর্ষায় স্রোত। অথচ প্রতিবছর ড্রেজিং করা হয়। কিন্তু বছর শেষে যা তাই। শীতে কুয়াশায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা বন্ধ থাকে ফেরি। কিন্তু এসব ভোগান্তি লাঘবে যথাযথ কোনো পদক্ষেপ নেই কর্তৃপক্ষের।

jagonews24

এদিকে বিষ্ময়কর বিষয় হচ্ছে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে ফেরি বন্ধ থাকায় যানবাহনের বাড়তি চাপ রয়েছে দৌলতদিয়ায়। কিন্তু গত কয়েকদিনে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটের উভয় ঘাটে যানবাহনের দীর্ঘ কোনো সিরিয়াল তৈরি হচ্ছে না। অথচ ফেরি আগের মতোই ১৭-১৮টি করে চলাচল করছে।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক মাহাবুব হোসেন জানান, পদ্মার স্রোত ও নাব্য সংকটে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। এছাড়া শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটের যানবাহনের বাড়তি চাপ রয়েছে দৌলতদিয়ায়। এ রুটে ১৮টি ফেরি চলাচল করায় ভোগান্তি ছাড়াই যাত্রীবাহী বাস ও ছোট গাড়িগুলোকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করা হচ্ছে। চাপ বেশি থাকায় মাঝে মধ্যে কিছু পণ্যবাহী ট্রাকের সিরিয়াল থাকছে। তবে সেটা দীর্ঘ লম্বা সারি না।