কক্সবাজার সংবাদদাতা :  মাত্র ৮ দিনের মাথায় উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি প্রত্যাহার করে নিয়েছে কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ। বুধবার (১৬ সেপ্টম্বর) জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দফতর সম্পাদক আবু তাহের আযাদের পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ কমিটি ভেঙে দেয়া হয়নি বা তাদের কার্যক্রম স্থগিত করা হয়নি। উপজেলা আওয়ামী লীগ তাদের কার্যক্রম সুষ্ঠু ও ঐক্যবদ্ধভাবে চালাতে পারলে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির কোনো প্রয়োজন থাকে না। কাজেই সাময়িকভাবে দেয়া উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি সম্মানের সঙ্গে প্রত্যাহার করা হলো। একইসঙ্গে উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্য নির্বাহী সংসদের সকল নেতৃবৃন্দকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে সাংগঠনিক কার্যক্রম জোরদার করতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে অনুরোধসহ নির্দেশনা প্রদান করা হয়।

কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান এ ব্যাপারে সকল নেতাকর্মীর সহযোগিতা কামনা করেছেন।

এরআগে গত ৯ সেপ্টেম্বর উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের ৩৩ সদস্যের একটি সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির আহ্বায়কের দায়িত্ব দেয়া হয় কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শাহ আলম চৌধুরী ওরফে রাজা শাহ আলমকে। এ নিয়ে উখিয়ায় সরকারদলীয় রাজনীতি সরগরম হয়ে ওঠে।

এদিকে শাহ আলম চৌধুরী ওরফে রাজা শাহ আলম উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক হওয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মসজিদে মসজিদে খতমে কোরআন শেষে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। সেখানে তারা রাজা শাহ আলমকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে অধিষ্ঠিত করতে আল্লাহ তায়ালার কাছে দোয়া করেন। দোয়া মাহফিলের একটি ভিডিও সোমবার রাতে প্রচার পাওয়ার পর কক্সবাজারজুড়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দফতর সম্পাদক আবু তাহের আযাদ বলেন, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক যে দায়িত্ব আমার উপর অর্পণ করেছেন আমি শুধু সেটুকু পালন করছি।

উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি হামিদুল হক চৌধুরী বলেন, আওয়ামী লীগ পরিচালনার জন্য একটি গঠনতন্ত্র রয়েছে। এর বাইরে গেলে সংগঠনের মধ্যে বিশৃঙ্খল অবস্থা সৃষ্টি হতে পারে। জেলা আওয়ামী লীগ সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি নামে যে কমিটি দিয়েছিল তা প্রত্যাহার করায় আমি তাদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি। একইসঙ্গে আমি সবাইকে নিয়ে উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করব। আমাদের মনে রাখা দরকার যে যাই করি না কেন দিন শেষে আমরা সবাই আওয়ামী লীগ।

জানতে চাইলে কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা বলেন, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সম্পর্কে চাচা ভাতিজা হওয়ায় তাদের মধ্যে নানা কারণে সম্পর্কের অবনতি হয়। বিষয়টি দলের উপর প্রভাব পড়ে। এমনকি উখিয়াতে আওয়ামী লীগের কমিটি নিষ্ক্রিয় বললে চলে। তাই সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি দেয়া হয়েছিল। কিন্তু দুঃখের বিষয় হলো নেতারা কেন্দ্রে একেকজন এক এক ধরনের তথ্য দিচ্ছে। আজ কেন্দ্রের নির্দেশে আবার সে কমিটিও প্রত্যাহার করা হয়েছে।

তবে অসমর্থিত সূত্র জানায়, সম্মেলন কমিটি সুন্দরভাবেই এগুচ্ছিল। কিন্তু কৌশলে কেউ রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মসজিদে রোহিঙ্গাদের দিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক শাহ আলম চৌধুরী ওরফে রাজা শাহ আলমকে প্রধানমন্ত্রী বানাতে মাহফিল করায়। এটির ভিডিও ধারণ করে ছড়িয়েও দেয় তারা। দোয়াটি ভালোভাবে নেয়নি আওয়ামী লীগের ঊর্ধ্বতন মহল। ফলে সম্মানের সঙ্গে কমিটি সরিয়ে নেয়া হয়েছে।