শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে টিউশন ফির সঙ্গে কী কী বাবদ অর্থ আদায় করা যাবে তা উল্লেখ করে দেয়া হবে। করোনা পরিস্থিতির মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় যে সকল কার্যক্রমের আয়োজন করা হয়নি, টিউশন ফিতে তা বাদ দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী একথা জানান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহাবুব হোসেন, কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ গোলাম ফারুক ও বিভিন্ন শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানরা।

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, ‘টিউশন ফি নিয়ে অনেক অভিভাবক ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি হয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার পরও অনেক প্রতিষ্ঠান তাদের ইচ্ছামতো নানা ধরনের ফি আদায় করছে। এ কারণে এ বিষয়ে একটি দিকনির্দেশনা জারি করা হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকাকালীন ক্রীড়া, মিলাদ-মাহফিল, ল্যাব ফিসহ নানা ধরনের ফি বাতিল করে বাকি টাকা আদায় করতে বলা হবে। দ্রুত এ-সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘করোনায় যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাদের জন্য এ সুবিধা কার্যকর করতে বলা হবে। সরকারি কোনো চাকরিজীবী কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হননি। তাই তার জন্য কোনো ধরনের ছাড়ের প্রয়োজন নেই। তাদের পুরো অর্থ পরিশোধ করতে হবে।’

বর্তমান পরিস্থিতিতে অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে টিউশন ফি নিয়ে সমস্যা নেই। শহরের কিছু কিছু স্থানে এ সমস্যা রয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো যেন টিকে থাকে আমাদের সেই দিকেও লক্ষ্য রাখতে হবে। অর্থ আদায় না হলে তারা শিক্ষকদের বেতন-ভাতা পরিশোধ করতে পারবে না। এ বিষয়টিকেও আমলে নিয়ে টিউশন ফি আদায়ে একটি দিকনির্দেশনা জারি করা হবে।’