স্পোর্টস ডেস্ক:করোনাভাইরাসে আক্রান্ত দলের প্রথম দুই গোলরক্ষক। ফলে বাধ্য হয়েই কয়েক ম্যাচ ধরে তৃতীয় গোলরক্ষক ১৮ বছর বয়সী রুসলান নেশেরেতকে খেলাচ্ছে ডায়নামো কিয়েভ। সুযোগ পেয়ে সেটির পূর্ণ ব্যবহার করেছেন এ রাশিয়ান তরুণ। নিজেকে মেলে ধরেছেন উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের বড় মঞ্চে, তাও কি না বার্সেলোনার মত শক্তিশালী দলের বিপক্ষে।গোলবারের নিচে একজন নেশেরেত থাকায় অন্তত গোটা চারেক গোল পেয়েও পায়নি বার্সেলোনা। যে কারণে স্কোরলাইন দেখাচ্ছে, বুধবার রাতে ডায়নামোকে মাত্র ২-১ গোলে হারিয়েছে বার্সা। অথচ গোটা ম্যাচে বার্সেলোনার অন্তত চারটি প্রায় নিশ্চিত গোল এবং সবমিলিয়ে ১২টি জোরালো শট ঠেকিয়ে দিয়েছেন নেশেরেত।তবে শেষপর্যন্ত বার্সার জয়টি ঠেকাতে পারেননি এ গোলরক্ষক। পুরো ম্যাচে বার্সেলোনার ২২টি শটের মধ্যে ১৪টি ছিল লক্ষ্য বরাবর। এর মধ্যে লিওনেল মেসি ও জেরার্ড পিকের একটি করে শট কোনোভাবেই জালের বাইরে রাখতে পারেননি নেশেরেত। যার সুবাদে দুই গোল পায় বার্সেলোনা। পরে ডায়নামো এক গোল শোধ করলেও জয় নিয়েই মাঠ ছেড়েছে স্প্যানিশ জায়ান্টরা।ঘরের মাঠে হওয়া ম্যাচটিতে পুরোপুরি দাপট দেখিয়েই খেলেছে বার্সেলোনা। প্রথম গোলও পেয়েছে ম্যাচের পাঁচ মিনিটের মধ্যে। ডি-বক্সের মধ্যে লিওনেল মেসিকে ফাউল করেছিলেন ডায়নামো ডিফেন্ডার ডেনিস পপোভ। যে কারণে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি।

গোলের সহজ সুযোগ পেয়ে সেটি হাতছাড়া করেননি মেসি। চ্যাম্পিয়নস লিগ ইতিহাসে বার্সেলোনার পক্ষে দ্রুততম পেনাল্টি গোল করে দলকে এগিয়ে দেন। চলতি মৌসুমে এখনও পর্যন্ত তিনটি গোল করেছেন মেসি। তিনটিই পেনাল্টি থেকে। তবে ম্যাচের বাকি সময় দারুণ খেলেছেন তিনি। কিন্তু পাননি গোলের দেখা।পরের দুই মিনিটেই আরও দুই গোল পেতে পারত বার্সেলোনা। তরুণ ফরোয়ার্ড পেদ্রির জোরালো শত প্রতিহত হয় ক্রসবারে লেগে। আর গোলের খুব কাছে দাঁড়িয়েও অবিশ্বাস্যভাবে সেটি জালে ঢুকাতে পারেননি ফরাসি তারকা অ্যান্তনিও গ্রিজম্যান। পরপর দুই মিনিটে দুইটি গোল মিস করে হতাশায় নিমজ্জিত হয় বার্সেলোনা।যদিও মাঠের খেলায় এর ছাপ পড়তে দেননি মেসি, ফাতিরা। তবে জবাব দিতে ভুল করেনি ডায়নামোও। এই ম্যাচ দিয়ে মৌসুমে প্রথমবারের মতো মাঠে নেমেছেন বার্সেলোনার জার্মান গোলরক্ষক মার্ক টের স্টেগান। তার বেশ ভালো পরীক্ষাই নিয়েছে ডায়নামোর আক্রমণভাগ। পুরো ম্যাচে অন্তত গোটা তিনেক অসাধারণ সেভ দিতে হয়েছে স্টেগানকে।তবে গোলরক্ষক হিসেবে ম্যাচটি নিজেরই করে নিয়েছেন নেশেরেত। দ্বিতীয়ার্ধে লিওনেল মেসির ফ্রি-কিক থেকে নিশ্চিত এক গোল ঠেকিয়ে দেন তিনি। মেসির জাদুকরী ফ্রি-কিকটি পোস্ট ঘেঁষে ঢুকে যাচ্ছিল জালে। ঠিক আগমুহূর্তে আলতো টোকায় সেটি বাইরে পাঠান নেশেরেত। ফলে আরও একবার গোলবঞ্চিত হন মেসি।পরের মিনিটেই অবশ্য ব্যবধান দ্বিগুণ করেন জেরার্ড পিকে। আনসু ফাতির ক্রস থেকে মাথা ছুঁইয়ে দলের চাপ খানিকটা কমান এ স্প্যানিশ ডিফেন্ডার। ম্যাচের ৭৫ মিনিটে গোল করেন ডায়নামোর ভিক্টর শ্যাংকব। ফলে ম্যাচে উত্তেজনা এলেও বাকি সময়ে আর কোনো গোলের দেখা মেলেনি। অপরাজিত থেকেই মাঠ ছেড়েছে স্বাগতিক বার্সেলোনা।এ জয়ের ফলে শেষ ষোলতে যাওয়ার রাস্তা আরও পরিষ্কার হলো বার্সেলোনা। জি গ্রুপে তিন ম্যাচে পূর্ণ ৯ পয়েন্ট নিয়ে সবার ওপরেই রয়েছে তারা। পরের তিন ম্যাচ থেকে আর মাত্র ২ পয়েন্ট পেলেই দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত হবে তাদের। একই গ্রুপে তিন ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ইতালিয়ান জায়ান্ট জুভেন্টাস।