স্পোর্টস ডেস্ক:সবার জানা, ইউরোপিয়ান ক্লাব ফুটবলে স্পেনের বার্সেলোনার পাড় ভক্ত সাকিব আল হাসান। আর ব্যক্তি খেলোয়াড়ের বিবেচনায় তিনি আর্জেন্টাইন সুপারস্টার লিওনেল মেসির একনিষ্ঠ ভক্ত। ফুটবল বিষয়ক যেকোনো আলোচনায় প্রায়ই মেসি বন্দনায় মেতে ওঠেন সাকিব। কোনো সংশয় ছাড়াই এক নম্বর হিসেবে মেনে নেন মেসিকে।চলতি মৌসুম শুরুর আগে মেসিকে পড়তে হয়েছিল চরম পরীক্ষায়। একের পর এক মাঠের ব্যর্থতা এবং মাঠের বাইরে ক্লাব ম্যানেজম্যান্টের চরম উদাসীনতার কারণে দীর্ঘ ২০ বছর পর বার্সেলোনা ছেড়ে যাওয়ার ইচ্ছাপোষণ করেছিলেন মেসি। কিন্তু শেষপর্যন্ত বিষয়টি আদালতে যাওয়ার উপক্রম হওয়ায় নিজের ইচ্ছার বলিদান দিয়েছেন তিনি।মেসির এই ক্লাব ছাড়া বিষয়ক ইস্যুতে গত আগস্টের শেষভাগ থেকে শুরু করে পুরো সেপ্টেম্বরসহ এখনও প্রায়শই নানান আলোচনা হয়। বিভিন্ন মতামত দেন বিশেষজ্ঞরা। এ আলোচনায় এবার পুরোপুরি না হলেও, নিজের অবস্থান জানিয়ে যোগ দিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের তারকা অলরাউন্ডার ও সাবেক অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।সাফ জানিয়েছেন, তিনিও চেয়েছিলেন মেসি যেন নতুন কোনো ক্লাবে যায়। এমনকি স্পষ্ট করে দুইটি ক্লাবের নামও উল্লেখ করেছেন সাকিব। তার মতে, ক্লাব বদল করলে নতুন করে ভাবার ও খেলার সুযোগ পেতেন মেসি। যা কি না প্রিয় খেলোয়াড়ের জন্য ভালো হতো বলে মনে করেন সাকিব। বুধবার রাতে এক ভিডিওবার্তায় এ কথা জানিয়েছেন বিশ্বসেরা এ অলরাউন্ডার।নিজের ইউটিউব চ্যানেলে দেয়া সেই ভিডিওবার্তায় ভক্তদের কিছু বাছাইকৃত প্রশ্নের পাশাপাশি সাংবাদিকদের প্রশ্নেরও উত্তর দিয়েছেন সাকিব। সেখানেই হাসনাফ জারিফ নামের একজনের প্রশ্ন ছিলো, ভক্ত হিসেবে লিওনেল মেসির ক্লাব ছাড়তে চাওয়ার ইচ্ছাকে কীভাবে দেখেছেন সাকিব? ঐ সময় তার নিজের অনুভূতি কেমন ছিল?উত্তরে সাকিব বলেছেন, ‘সত্যি বলতে, আমি চেয়েছিলাম মেসি ক্লাব ছেড়ে যাক। দলবদল করে ম্যানচেস্টার সিটি অথবা পিএসজিতে (প্যারিস সেইন্ট জার্মেই) যাক। আমার ধারণা, এ দুই ক্লাবে ও (মেসি) আরও ভালোভাবে খেলতে পারত। অনেক স্বাধীনতা নিয়ে খেলতে পারত।তিনি আরও ‘যেহেতু এখন ওর ক্যারিয়ারের একদম শেষ সময়। (পিএসজি বা ম্যান সিটিতে গেলে) চলতি মৌসুম বা পরের মৌসুমটা আরও উপভোগ করে খেলতে পারত। যেটা বার্সেলোনায় সম্ভব হয় না। কারণ গত ৩-৪ বছর ওর একার ওপর অনেক বেশি চাপ। শেষপর্যন্ত যেহেতু রয়ে গেছে, আমি চাইব ও যেন শিরোপা দিয়েই বার্সেলোনা থেকে বের হতে। যদি আগামী বছর বের হতে চায়।