যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে শারীরিক নির্যাতন ও ভ্রূণ হত্যার অভিযোগে করা মামলায় সহকারী পুলিশ সুপার (বরখাস্ত) নাজমুস সাকিব হাইকোর্টে জামিন আবেদন করেছেন।

বৃহস্পতিবার (৫ নভেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি শেখ মো. জাকির হোসেন ও বিচারপতি কে এম জাহিদ সরোয়ারের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে আবেদনটি শুনানির জন্য কার্যতালিকায় রয়েছে। আবেদনের বিষয়টি বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এর আগে গত ১৫ সেপ্টেম্বর যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে দফায় দফায় শারীরিক নির্যাতন ও ভ্রূণ হত্যার অভিযোগে করা মামলায় নাজমুস সাকিবকে কারাগারে পাঠান আদালত। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল-৬ এর বিচারক আব্দুল আল মামুন জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

নাজমুস সাকিব সর্বশেষ খাগড়াছড়ির এপিবিএন স্পেশালাইজড ট্রেনিং সেন্টারে কর্মরত ছিলেন। পরে তাকে বরখাস্ত করা হয়। স্ত্রীকে শারীরিক নির্যাতন ও জোর করে গর্ভপাত ঘটানোর অভিযোগে গত ৪ মে রমনা থানায় মামলা করেন নাজমুস সাকিবের স্ত্রী ইসরাত রহমান। মামলায় সাকিবের বাবা ও মাকেও আসামি করা হয়।

মামলার অভিযোগে থেকে জানা যায়, তিন বছর আগে নাজমুস সাকিবের সঙ্গে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের কন্যা ইসরাত রহমানের। স্ত্রী ইসরাতের দাবি, বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের দাবিতে তার ওপর শারীরিক নির্যাতন শুরু হয়।

স্বামীর নির্যাতনে কয়েকবার হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন তিনি। ২০১৯ সালের জুলাই মাসে তাকে জোর করে গর্ভপাত করানো হয় বলে অভিযোগ করেছেন ইসরাত রহমান।