স্পোর্টস ডেস্ক:করোনাভাইরাসের কারণে হওয়া আর্থিক ক্ষতি পুষিয়ে সরকারি তহবিল থেকে দেড় মিলিয়ন ডলার বা সাড়ে ১৬টি টাকা পেয়েছে ক্রিকেট আয়ারল্যান্ড (সিআই)। দেশটির সরকারের করোনা রেসকিউ ফান্ড থেকে পুরস্কার হিসেবে দেয়া হয়েছে এই বড় অঙ্কের অর্থ।বিশ্বব্যাপী মহামারির কারণে আয়ারল্যান্ড ক্রিকেটের পুরো গ্রীষ্ম মৌসুমের ঘরোয়া সূচি বাতিল হয়ে গেছে। গত মার্চে লকডাউন শুরু হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত শুধুমাত্র ইংল্যান্ডের মাটিতে তিনটি ওয়ানডে খেলেছে আইরিশরা। তাদের নারী দল এখনও মাঠে ফিরতে পারেনি।ক্রিকেট আয়ারল্যান্ডের প্রধান নির্বাহী ওয়ারেন ডিউট্রম জানিয়েছেন, ক্রিকেট বোর্ডের জন্য এই আর্থিক সাহায্য অনেক বেশি জরুরি ছিল। এটি শুধু জাতীয় দল নয়, বরং তৃণমূল পর্যায়ের ক্রিকেটেও অনেক সাহায্য করবে।তিনি বলেন, ‘করোনাভাইরাসের কারণে আমরা যে ব্যবসায়িক ও আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছি, তার ভরপাই করতে এই ফান্ডিংটা বেশ কাজে লাগবে। কোভিড-১৯ এর পরিস্থিতি সামাল দেয়াটা এখন খানিক সহজ হতে পারে। সাম্প্রতিক বাজেটে সরকার কর্তৃক নতুন ফান্ডিং প্যাকেজের ব্যাপারেও আমাদের নিশ্চয়তা দেয়া হয়েছে। কেননা ২০২১ সালের ব্যাপারেও এখন অনিশ্চয়তা রয়ে গেছে।সম্প্রতি ২০১৯ সালের বার্ষিক আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ক্রিকেট আয়ারল্যান্ড। একটি সাইবার ক্রাইমজনিত সমস্যায় পৌনে দুই লাখ ডলার ক্ষতি হলেও, বার্ষিক হিসেবে আয়ারল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের ক্ষতির পরিমাণ দেখা গেছে মাত্র ৯৭৯৭ পাউন্ড বা ১০ লাখ টাকার কাছাকাছি। মূলত ঘরের মাঠে খেলা না হওয়া এবং ব্রডকাস্টিং পার্টনারদের চুক্তি রাখতে না পারায় এ ক্ষতি হয়েছে।বার্ষিক প্রতিবেদনে জানা গেছে, ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লর্ডসে যে টেস্ট খেলেছিল আয়ারল্যান্ড, সেটির টিভি দর্শকদের চাহিদা গত এক দশকে ভারত ও অস্ট্রেলিয়া ব্যতীত ইংল্যান্ডের যেকোনো টেস্টের চেয়ে বেশি ছিল। এছাড়া টি-টোয়েন্টি স্লাম থেকে আয় হওয়া প্রায় ১ মিলিয়ন পাউন্ডেরও কিছু অংশ পেয়েছে ক্রিকেট আয়ারল্যান্ড।