স্পোর্টস ডেস্ক:বিশ্বের যেকোন দলের জন্যই মুখোমুখি লড়াইয়ে সবচেয়ে বড় কাঁটা ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি। খুব কম দেশই কোহলিকে খেপিয়ে দেয়ার ঝুঁকি নেয়। এক্ষেত্রে বরাবরই ব্যতিক্রম অস্ট্রেলিয়া। গত কয়েক বছরে মাঠে কোহলিকে উত্যক্ত করতে বিন্দুমাত্র ছাড় দেয়নি অসিরা।

তবু দুই দলের সবশেষ লড়াইয়ে জয়ীর নাম বিরাট কোহলি। ২০১৮-১৯ সফরের বর্ডার-গাভাস্কার ট্রফিতে ২-১ ব্যবধানে জিতেছিল কোহলির ভারত। সিরিজে এক সেঞ্চুরি ও এক ফিফটিতে ২৮২ রান করে তৃতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন কোহলি। তার ওপরে ছিলেন ভারতেরই রিশাভ পান্ত ও চেতেশ্বর পুজারা।

এখন চলে এসেছে আরেক সিরিজের সময়। ২০২০-২১ মৌসুমের বর্ডার-গাভাস্কার ট্রফিতে অংশ নিতে ভারতীয় দল এখন অস্ট্রেলিয়ায়। সিরিজটি চার ম্যাচের হলেও, মাত্র এক ম্যাচ খেলেই দেশে ফিরে আসবেন কোহলি। কারণ সন্তানসম্ভবা স্ত্রী আনুশকা শর্মার পাশে থাকতে হবে। সে কারণে এরই মধ্যে ছুটি মঞ্জুর হয়ে গেছে কোহলির।

পুরো সিরিজ না খেললেও কোহলিকে ঘিরে আলোচনার কোনো কমতি নেই এবারের বর্ডার-গাভাস্কার ট্রফির আগে। অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক টিম পেইন তো জানিয়েই দিলেন, কোহলিকে ঘৃণা করতে ভালোবাসেন তারা। তবে সেটা শুধুই প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে। একজন ভক্ত হিসেবে কোহলির ব্যাটিং উপভোগ করে থাকেন অসি অধিনায়ক।

এবিসি স্পোর্টসকে দেয়া সাক্ষাৎকারে পেইন বলেন, ‘বিরাট কোহলির ব্যাপারে আমি অনেক প্রশ্ন পেয়ে থাকি। তবে সত্যি বলতে, সে আমার কাছে অন্য সাধারণ ক্রিকেটারদের মতোই একজন। আমি বেশি ভাবি না এ বিষয়। তার সঙ্গে আসলে আমার অমন ভালো সম্পর্কও নেই। আমি তাকে টসের সময় দেখি, তার বিপক্ষে খেলি- এটুকুই তো।’

তিনি আরও যোগ করেন, ‘কোহলির ব্যাপারে মজার বিষয় হলো, আমরা তাকে ঘৃণা করতে ভালোবাসি। আবার একই সময়ে ক্রিকেট ভক্ত হিসেবে তার ব্যাটিং দেখতেও ভালবাসি। তার এ বিষয়টা পুরোপুরি আপেক্ষিক বলা চলে। আমরা তার ব্যাটিং ভালোবাসি। কিন্তু কখনও চাই না যে, সে বেশি রান করুক।’

এসময় অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের মধ্যকার প্রতিদ্বন্দ্বিতার কথা উল্লেখ করে অসি অধিনায়ক বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের মধ্যকার লড়াইটা সবসময়ই বেশ উত্তপ্ত থাকে। আর সে (কোহলি) এক্ষেত্রে সবসময়ই প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ একজন, যেমনটা আমি নিজেও। তার সঙ্গে আমার কিছু কথা হয়েছে। তবে সেটা দুই অধিনায়ক হিসেবে নয়, ক্রিকেটার হিসেবে।’