আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল উপকণ্ঠে জাতিসংঘের একটি গাড়িবহরে হামলায় অন্তত পাঁচজন প্রাণ হারিয়েছেন। নিহতরা সবাই আফগান নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য। তারা জাতিসংঘের ওই গাড়িবহরের নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন। খবর রয়টার্সের।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার কাবুল থেকে প্রায় ৬০ কিলোমিটার পূর্বে সুরোবি জেলার তাং-এ-হাব্রেশিম এলাকায় জাতিসংঘের গাড়িবহরে হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। এসময় এক গাড়িচালক নিহত হলে ড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে নদীতে পড়ে যায়। এতে প্রাণ হারান গাড়ির আরও চার আরোহী।

আফগানিস্তানে জাতিসংঘের সহায়তা মিশন (ইউএনএএমএ) টুইটারে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে বলেছে, আফগানিস্তানের জাতিসংঘ পরিবার আজকের ঘটনায় আফগান নিরাপত্তা বাহিনীর পাঁচ সদস্যের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করছে।

হামলায় জাতিসংঘের কোনও কর্মকর্তা হতাহত হননি বলেও নিশ্চিত করেছে ইউএনএএমএ।

Afghan-1.jpg

আফগান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা দাবি করেছেন, এ হামলায় তালেবান জড়িত। তবে তার অভিযোগ অস্বীকার করেছে সশস্ত্র সংগঠনটি।

প্রায় এক বছর আগে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তালেবানের চুক্তির পর থেকে আফগানিস্তানে বিদেশি বাহিনী ও কর্মকর্তাদের ওপর হামলার ঘটনা খুব একটা দেখা যায়নি। তবে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে সেখানে আবারো হামলা-সহিংসতা বেড়ে গেছে।

দেশটিতে প্রায় প্রতিদিনই ঘটছে গাড়িতে চুম্বক দিয়ে বা রাস্তার পাশে পুঁতে রাখা বোমার বিস্ফোরণ। এসব হামলায় আফগান সরকারের কর্মকর্তা, সমাজকর্মী ও সাংবাদিকদের লক্ষ্যবস্তু বানানো হচ্ছে।

গত বৃহস্পতিবারই আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় কুনার প্রদেশে পরপর তিনটি বিস্ফোরণে অন্তত তিনজন প্রাণ হারিয়েছেন, আহত হয়েছেন আরও দু’জন। এছাড়া, নানগারহার প্রদেশে পৃথক তিনটি বিস্ফোরণে দুইজন নিহত এবং পাঁচজন আহত হয়েছেন।

একই দিন, দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় ফারিয়াব প্রদেশে অজ্ঞাত বন্দুকধারীর গুলিতে আহত হয়েছেন কুতবুদ্দিন কোহি নামে এক সাংবাদিক।