চারজনের করোনা সনাক্ত হওয়ার পর আপাতত পুরো পিএসএলই থমকে ছিল দুইদিন। ৩ মার্চ আবার শুরু হয়েছে পিএসএলের খেলাগুলো। যদিও পাকিস্তানের এই ঘরোয়া টুর্নামেন্টটিরন জন্য তৈরি করা বায়ো-বাবল বা সুরক্ষা বলয় কেউ মানছে না। যে কারণে করোনা আক্রান্তের হার বেড়ে যাচ্ছে।

এমন পরিস্থিতিতে পিএসএলে খেলা সব খেলোয়াড় এবং কর্মকর্তাকে ভ্যাকসিন দেয়ার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। সম্প্রতি তিনজন বিদেশী ক্রিকেটার এবং একজন সাপোর্ট স্টাএফর করোনা আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা রয়েছে। এ কারণেই ভ্যাকসিন দেয়ার চিন্তার উদয় হয়েছে পিসিবি কর্মকর্তাদের মাথায়।

শুধু ভ্যাকসিন দেয়াই নয়, পুরো পিএসএল টুর্নামেন্টটাই করাচিতে আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড। এমনিতে করাচির সঙ্গে লাহোর ছিল পিএসএলের নির্ধারিত ভেন্যু। কিন্তু করোনার কারণে এক ভেন্যুতেই বাকি টুর্নামেন্ট আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিচ্ছে পিসিবি।

ভ্যাকসিন দেয়ার এই সিদ্ধান্তটি মূলতঃ পিএসএল নিয়ে পিসিবির একটি নীতিমালারই অংশ। যেখানে বলা আছে লিগে অংশ নেয়া সব খেলোয়াড়ের ভ্যাকসিন নিশ্চিত করা, যাতে সবাই স্বাস্থ্যগতভাবে ভালো থাকতে পারে।’

পিসিবি থেকে প্রকাশ করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ‘বৃহস্পতিবার (আজ) ভ্যাকসিন দেয়া শুরু হবে খেলোয়াড় এবং কর্মকর্তাদের। বায়ো-বাবল সিকিউরড পজিশনে যারা আছেন, সবাইকেই ভ্যাকসিন নেয়ার জন্য বলা হয়েছে। তবে, সবাইকে ভ্যাকসিন নেয়ার আহ্বান জানানো হলেও , নেয়া না নেয়া খেলোয়াড়-কর্মকর্তাদের যার যার নিজের সিদ্ধান্তের বিষয়।’

শুধু পিএসএল নয়, পর্যায়ক্রমে দেশের সব ক্রিকেটারকেই ভ্যাকসিন দেয়ার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে পাকিস্তান। এ কারণে তারা রাজ্য সরকার এবং ক্রিকেট সংস্থাগুলোর সঙ্গে আলোচনা করছে। এর উদ্দেশ্যে মূলতঃ জাতীয় দলের পাশাপাশি সারা দেশের ক্রিকেটারদের স্বাস্থ্যগত সুরক্ষা নিশ্চিত করা।

পিসিবি প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম খান বলেন, ‘পিসিবি তাদের খেলোয়াড় এবং কর্মকর্তাদের স্বাস্থ্যগত নিরাপত্তার বিষয়টি খুব গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করছে।’